ব্রেস্ট টাইট করার ক্রিম

বাজারে যে সমস্ত ক্রিম পাওয়া যায় ব্রেস্ট টাইট করার জন্য সেগুলো কি আদও আসলেই কাজ করে? আর তা ব্যবহার করাও কি ভালো?    প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। গ্রাহক,স্তনের আকার সাধারনত শারীরিক গঠনের সাথে সম্পর্কিত । তাই ছোট , বড় যাই হোক তা স্বাভাবিক। ইন্টারনেটে স্তনের আকার পরিবর্তনের জন্য অনেক ম্যাসেজ এর পদ্ধতি দেখানো আছে কিন্তু তা কতটা ফলপ্রসূ তা কোথাও উল্লেখ নাই। তারপরও যদি আপনি মনে করেন আপনার স্তনের আকার পরিবর্তন করা দরকার তাহলে এক্ষেত্রে একমাত্র উপায় হলো সার্জারী।

ব্রেস্ট টাইট করার ক্রিম

 

এটি অত্যন্ত ব্যয় বহুল এবং এর অনেক জটিলতা আছে। সার্জারির আগে প্লাস্টিক সার্জনের পরামর্শ নিতে হবে।সবচেয়ে বড় কথা হলো নিজের সবকিছু নিয়ে খুশি থাকা। নিজেকে নিয়ে হতাশা তৈরী হলে জীবনের কোনো ক্ষেত্রেই ভালো কিছু হবে না। তাই নিজেকে নিয়ে কনফিডেন্ট থাকা প্রয়োজন। তাই , আপনার স্তনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ধরে রাখতে কিছু নিয়ম মেনে চলুন ,যেমন :- – একটি বড় কারণ সঠিক অন্তর্বাস বাছাই করতে না পারা :- দেখা গেছে যারা প্রতিনিয়ত অন্তর্বাস পড়ে থাকেন তাঁদের তুলনায় যেসব নারীরা খুব বেশি অন্তর্বাস পরিধান করেন নি, তাঁদের স্তনের আকৃতি অনেক বয়স পর্যন্তও সুন্দর থাকে। অপর আরেকটি রিসার্চে দেখা যায় যে ভুল মাপের অন্তর্বাস দ্রুত নষ্ট করে ফেলে আপনার স্তনের আকৃতি। অন্তর্বাস হতে হবে সঠিক মাপের। খুব বেশী টাইট বা খুব ঢিলেঢালা, দুটোই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। – যদি আপনি পর্যাপ্ত জল পান না করেন :- পর্যাপ্ত জল পান না করলে ক্রমশ বয়সের ছাপ পড়ে আপনার ত্বকে এবং ত্বকের চামড়া ঝুলে যেতে থাকে সময়ের অনেক আগেই। এবং হ্যাঁ, শুধু মুখের নয়, সম্পূর্ণ শরীর তথা স্তনের ত্বকেও এর প্রভাব দেখা যায় অত্যন্ত বেশি। – অতিবেগুনি রশ্মির হাত থেকে বাঁচুন :- সুতির পোশাক কিংবা পাতলা ফেব্রিক পরতে ভালোবাসেন? জেনে রাখুন, প্রখর সূর্যরশ্মি আপনার মুখের ত্বকের পাশাপাশি সম্পূর্ণ ত্বকেরই ক্ষতি করে। পোশাকে ঢাকা থাকলেও সূর্যের রশ্মি আপনার ত্বকে উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে। তাই সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে ভুলবেন না। বিশেষ করে স্তনের নরম ত্বকে। সূর্যের প্রখর উত্তাপ বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে অনেক ত্বরান্বিত করে দেয়। – ধূমপান মানবদেহের জন্য একটি অভিশাপের নাম এবং নারীদের ক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ পুরুষের চাইতে অনেকটাই বেশী। ধূমপান আপনার ত্বকের ইলাসটিনকে নষ্ট করে ফেলে, যা ত্বকে টানটান ভাব ও তারুণ্য ধরে রাখে। ফলে আপনাকে দেখায় অনেক বেশী বয়স্ক। ধূমপায়ী নারীদের স্তনের আকৃতি ও সৌন্দর্য দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। – ওজন কমানো ভালো, তবে ওজন কমে যাওয়ার প্রভাব সবার আগে পড়ে আপনার স্তনের উপর। কেননা স্তন তৈরি মূলত ফ্যাট সেল দিয়ে, তাই ওজন কমলে প্রথমেই স্তনে এর প্রভাব দেখা যায়। আপনি যখন বেশি মোটা হন, ত্বকে স্ট্রেচ হতে হতে ইলাসটিসিটি হারিয়ে ফেলে। পরে পরবর্তীতে আপনি যখন স্লিম হয়ে যায়, তখন স্তন ঝুলে যায়। দ্রুত ওজন না কমিয়ে ধীরে সুস্থে কমাতে হবে এবং ওজন খুব দ্রুত ওঠানামা করতে দেয়া যাবে না। অল্প অল্প করে ওজন কমালে স্তনের আকৃতি অনেকটাই কম নষ্ট হবে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।

আরো পড়ুন  মাত্র ১মাসে মেদ কমাবে ৪ টি শক্তিশালী উপাদান

মাত্র ৭ দিনে ব্রেস্ট বা স্তন টাইট করার ঘরোয়া কিছু সহজ উপায়

আজ আমি আপনাদের এমন কিছু সহজ ঘরোয়া উপায় শেয়ার করব যার সাহায্যে মাত্র ৭ দিনে ব্রেস্ট বা স্তন টাইট করতে পারবেন । চলুন এই সহজ উপায়গুলো জেনে নিই।

স্তন কেন টাইট করব ?

আমাদের অধিকাংশ পুরুষের কাছে নারীর শরীরের সবথেকে বেশি আকর্ষণীয় অঙ্গ হচ্ছে তার স্তন। একজন মহিলাকে সবথেকে আকর্ষনীয় সুন্দর এবং আবেদনময়ী করে তোলে তার দুটি স্তন।

আর এই বিষয়টি প্রায় সকল নারীই জানে। তার শারীরিক সৌন্দর্য ঠিক রাখার জন্য এবং নিজেকে কাছের পুরুষটির কাছে আকর্ষণীয় করে রাখার জন্য স্তন টাইট রাখা মেয়েদের জন্য এক প্রকার চ্যালেঞ্জ।

প্রথমত……

বিবাহিত মেয়েদের বিয়ের কিছুদিন পরেই তাদের স্তন ঝুলে যায়। আগের মত টাইট ফিট থাকে না। স্বামীর কাছে তার স্ত্রীকে অতঃপর আর আকর্ষণীয় বলে মনে হয় না।

স্তন বড় করার উপায়
তখন মহিলাদের প্রয়োজন স্তনকে সুন্দর এবং সুদৃঢ় করে রাখা। বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট বা মেডিসিন ব্যবহার করে মেয়েরা এজন্য।

এরপর………

আবার কিছু কিছু মেয়েদের ক্ষেত্রে দেখা যায় বিয়ের আগে অল্প বয়সে তাদের স্তন ঝুলে গেছে।

তাদের জন্য আজকে আমাদের কিছু টিপস যে…..

কিভাবে ঘরে বসে স্তন ঝুলে পড়া সমস্যা থেকে আপনারা মুক্তি পেতে পারেন……
ছোট ও ঝুলে পড়া ব্রেস্ট টাইট ও পারফেক্ট সাইজের করে নিন

কিভাবে স্তন কে অনেক বেশি টাইট এবং সুদৃঢ় রাখতে পারবেন,………

স্তন ঝুলে পড়া রোধ করতে এবং স্তনের সেফ ঠিক রাখার টিপসঃ

প্রথমে একটি বাটি নিব। তারপর বাটি তে একটা ডিম ভেঙ্গে নিন। ডিম ভাঙার পর এর সাদা অংশটা বাদ দিয়ে শুধু কুসুম নেন। এবারে কুসুমের ভিতর একটি চা চামচ এর তিন চামচ এর এক ভাগ শশার রস ঢেলে ভালোভাবে মিক্স করেন।

তারপর একটি প্যাক তৈরি করুন।এরপর যখন আপনি গোসল করতে যাবেন তখন কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে এই প্যাকটি আপনি আপনার স্তনে লাগিয়ে নিন।৩০ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

ব্রেস্ট ফারফেক্ট সাইজের করার উপায়

এরপর যখন খুব ভালোভাবে শুকিয়ে যাবে তখন আপনি আলতোভাবে পানি দিয়ে ঘষে ঘষে স্তন ধুয়ে ফেলুন।

মাত্র ৭ দিন আপনি এই প্যাকটি আপনার দুই স্তনে যদি ব্যবহার করেন, তাহলে আপনার স্তনের যে পরিবর্তন হচ্ছে সেটা আপনি নিজেই উপলব্ধি করতে পারবেন।

স্তন টাইট রাখার দ্বিতীয় টিপসের জন্য প্রয়োজন হবে ছোট ছোট বরফের টুকরো।

আপনার বাসায় যদি ফ্রিজ থাকে তাহলে বরফের ছোট ছোট টুকরো তৈরি করা আপনার জন্য খুব সহজ হবে।
স্তন টাইট করার উপায়
আপনি গোসল করার আগে এই ছোট ছোট চার-পাঁচটা বরফের টুকরা একটা কাপড় নিয়ে আপনার স্তনের চারপাশে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ৫ থেকে ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন।
টানা সাত থেকে দশ দিন আপনি যদি এরকম ৫ থেকে ১০ মিনিট বরফের টুকরো দিয়ে আপনার স্তন ম্যাসাজ করতে পারেন, খুব অল্প সময়ে আপনার স্তন ধীরে ধীরে পরিবর্তন হচ্ছে।
এছাড়াও আপনি অবশ্যই আরো কিছু উপায় অবলম্বন করতে পারেন,
যেমন আপনার খাদ্য তালিকার মধ্যে ডিম, দুধ, ডাল রাখতে পারেন।

ঝুলে পড়া স্তন টাইট করতে
এছাড়াও ভিটামিন,ক্যালসিয়াম এর মত পুষ্টিগুণ রয়েছে এরকম খাবারগুলো খেতে হবে। যেমন বাঁধাকপি, ফুলকপ্‌ টমেটো,গাজর ইত্যাদি।
অবশ্যই আপনার খাদ্য তালিকায় এ ধরনের খাবার গুলো রাখতে হবে।

আরো পড়ুন  জ্বর হলে সাথে সাথে নাপা প্যারাসিটামল জাতীয় এন্টিপাইরেটিক খাওয়া কি আদৌ উচিত?

যদি সম্ভব হয় তাহলে প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ মিনিট সাঁতার কাটুন। সাঁতার কাটলে আপনার স্তনের যে পেশী গুলো রয়েছে সেগুলো শক্ত হতে সাহায্য করে।
ব্রেস্ট টাইট করার উপায়
ব্রেস্ট টাইট করার উপায়
এছাড়া আপনাকে খেতে হবে প্রচুর পানি। দিনে অন্তত ৪থেকে ৫ লিটার পানি পান করা উচিত। এতে করে মেয়েদের স্তনের চামড়া যে কুঁচকে যায় সেই চামড়া বা ত্বককে টানটান রাখতে সাহায্য করে।
অনেকে আবার স্তনের আকৃতি বা শেপ ঠিক রাখার জন্য দিন রাত সারাক্ষন ব্রা পড়ে থাকে এতে উপকার তো হবেই না, বরং উল্টো ক্ষতি হয়।
মাত্র ৭ দিনে স্তন টাইট করার উপায়
আপনি বাইরে যখন বের হবেন তখন অবশ্যই ব্রা পড়বেন, কিন্তু আপনি যখন বাসায় রিলাক্স করবেন, কিংবা রাতে যখন ঘুমাতে যাবেন, তখন অবশ্যই ব্রা খুলে ঘুমাবেন। এবং ঢিলেঢালা পোশাক পরিধান করবেন।
স্তন ঝুলে যাওয়ার অন্যতম আরেকটি কারণ হচ্ছে অত্যাধিক ভাবে ওজন বেড়ে যাওয়া ।অথবা শরীরের চর্বি জমা। তাই আপনার যদি হঠাৎ করে অত্যাধিক ওজন বেড়ে যায়, এতে করে আপনার স্তন ঝুলে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই নিজের স্তনের সৌন্দর্য ঠিক রাখার জন্য নিজের ওজনের নিয়ন্ত্রণ রাখার চেষ্টা করুন। স্তন ঝুলে যাওয়া সমস্যা ঠিক করার জন্য কোন ধরনের মেডিসিন নেবেন না।
মাত্র ৭ দিনে স্তন টাইট করার উপায়
এইগুলো উপকার তো করেই না বরং অনেক বেশী ক্ষতি করে।

সুতরাং……

স্তনের সেফ ঠিক রাখার জন্য প্রথমে দুটি কৌশল উল্লেখ করলাম। এবং যে খাদ্যের কথাগুলো বললাম এগুলো যদি আপনি নিয়মিত খেতে পারেন তাহলে মাত্র ৭ দিনে আপনার স্তন অনেক সুন্দর এবং আকর্ষণীয় করতে পারবেন।

স্তন ঢিলে হয়ে যাওয়া এবং ঝুলে যাওয়া কিভাবে কমাবেন ? স্তন ঝুলে যাওয়া নানা কারনে হতে পারে, যেমন –

অতিরিক্ত ওজন, বয়স এবং সন্তান গর্ভধারন।

স্তনের শিথিল হওয়া থেকে অনেকাংশে রক্ষা পাওয়া যায়।

ধাপ ০১:

এমন ব্রা পরুন যা আ পনার স্তনকে সম্পুর্ন সাপোর্ট দেয় লক্ষ্য রাখতে হবে আপনার ব্রা অবশ্যই আপনার সাথে সাবলীল ভাবে চলতে পারে – অর্থাৎ চলার সময় আপনার ব্রা লেইস যেন কাঁধ থেকে খসে না পড়ে অথবা বন্ধনি অতিরিক্ত টাইট কিংবা অতিরিক্ত লুজ না হয়। যখন ব্রা সাইজ নেবার জন্য মাপতে যাবেন – অবশ্যই খেয়াল রাখবেন আপনার পুরাতন ব্রা পরনে থাকতে হবে এবং সে অবস্থায় স্তনের ঠিক নিচে মাপ নিচ্ছেন।

ধাপ ০২:

ব্রেষ্ট লিপ্ট সার্জারী তথা স্তন উন্নতকরন অস্ত্রোপ্রচারের মাধমে ঝুলে যাওয়া স্তনকে উন্নত করা যায়। ব্রেষ্ট লিপ্ট সার্জারীর জন্য লোকাল এনেস্থেসিয়া করে অস্ত্রপ্রচার করা হয়ে থাকে সাধারনত। এ পদ্ধতিতে অতিরিক্ত ত্বক ফেলে দেয়া হয় এবং অনেকের ক্ষেত্রে নিফল/ স্তন বোঁটা এবং areola এর স্থান পরিবর্তন করা হয়। আপনি যদি সন্তানকে স্তনদান করছেন অথবা গর্ভধারন করেছেন, সেই অবস্থায় অস্ত্রপ্রচার করা উচিৎ হবে না।

ধাপ ০৩:

নিয়মিত সঠিক ব্যয়াম করলে আপনার পিকটোরিয়াল পেশী সুগঠিত থাকবে, যা আপনার স্তন সুঢৌল থাকার ঐচ্ছ্যিক সমর্থন জোগাবে। ফলমুল এবং তাজা সব্জির সমন্বয়ে স্বাস্থ্য সম্মত খাবার, কম চর্বিযুক্ত খাবার এবং আঁইশ যুক্ত খাবার আপনার স্বাস্থ্য ঠিক রাখবে যা স্তনের সুন্দর গঠনে ভুমিকা রাখবে। পক্ষান্তরে শরীরের ওজন বৃদ্ধিতে চামড়ার স্থিতিস্থাপকতা ( টান টান ভাব) কমে যায় – যা স্তনের ঢিলে ভাব প্রকট করে।

ধাপ ০৪:

আপনি যদি ধুমপায়ী (প্রত্যক্ষ/ পরোক্ষ) হন তাহলে তা আজই বর্জন করুন। কারন তামাকের নিকোটিন সরাসরি বার্ধক্যকে প্রভাবিত করে এবং চামড়ার স্থিতিস্থাপকতা নষ্ট করে যা শরীরের অন্য অংশের মত স্তনের চামড়াকেও ঢিলে করে দেয় – ফলশ্রুতি, স্তনের ঝুলে পড়বে।

আরো পড়ুন  ব্রেস্ট বড় করার ঘরোয়া পদ্ধতি

মেয়েদের বুকের দুধ শক্ত করার পদ্ধতি ঃ ব্রেস্ট ঝুলে গেলে ব্রেস্ট টাইট করার প্রাকৃতিক উপায় বা করনীয় কি?

নানা কারনেই মেয়েদের ব্রেস্ট বা স্তন ঝুলে জেতে পারে। সমস্যা বাধে স্তন ঝুলে গেলে নারীর জন্যও বিব্রতকর হয়ে উঠে ব্যাপারটা।
আসুন জেনে নিই দুধ ঝুলে গেলে কীভাবে ব্রেস্ট টাইট করবেন। প্রাকৃতিক উপায়ে করা যাবে নাকি ক্রিম ট্রিম লাগবে তাও জেনে নেওয়া যাক। ব্রেস্ট টাইট হলে দুধ শক্ত হয়ে যাবে ( একই কথা)

ঝুলা ব্রেস্ট টাইট করার উপায়

তেলঃ ব্রেস্ট টাইট করার জন্য বাজারে এখন বেশ কিছু তেল পাওয়া যায়।ভালো মানের তেল ইউজ করতে পারেন ব্রেস্ট এর গঠন এর উন্নতি করতে। যদিও এটি প্রাকৃতিক না কিন্তু কার্যকর বলা চলে।
বেশি পানি পানঃ শুনে কিছুটা অবাক হলেও সত্য যে পানি পান আপনার ব্রেস্ট ই না বরং সাড়া দেহের জন্যই দরকারি। দেহে পানির অভাবে ডিহাইড্রেট হয় এবং এর ফলে চামড়া তার টাইটনেস হারায়। স্বাভাবিক ভাবেই এটি নারীদের স্তনের টাইটনেস নষ্ট করে ঝুলা ঝুলা ভাব এনে দেয়।তাই ব্রেস্ট টাইট করতে পানি পান করুন। প্রতিদিন ৬৪ oz পরিমান পানি।
সঠিক মাপের ব্রাঃ অনেকেই স্তনের সাইজ মাপতে পারেনা ফলে ভুল সাইজের ব্রা পরে। স্তনের চেয়ে ছোট কিংবা বড় ব্রা ২ টাই আপনার ব্রেস্ট এর জন্য ক্ষতিকর। তাই মেয়েদের দুধ ঠিক রাখতে সঠিক মাপের ব্রা ইউজ করুন।

দুধ শক্ত করার পদ্ধতি বা টাইট ব্রেস্ট করার টিপস

ব্যায়াম ঃ চেস্ট ব্যায়াম। আমাদের দেশের মেয়েরা শরীরের বাহ্যিক সৌন্দর্য নিয়ে চিন্তিত থাকলেও শরীরের মূল সুস্থতা নিয়ে তেমন চিন্তিত না তাই মেকাপ করলেও ব্যায়াম করেনা।
কিন্তু ব্যায়াম বিশেষ করে চেস্ট ব্যায়াম আপনার ব্রেস্ট এর গঠন ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

ব্যায়াম করতে বলছি বলে আপনাকে জিমে জেতে বলছি না, জিম মেয়েদের জন্য নিরাপদ না। এখনো না। শরীর ঠিক রাখতে Basic ব্যায়াম ঘরেই করা যায় এই কথা ছেলে মেয়ে উভয়ের জন্যই সত্য।
সিক্স প্যাক করা শরিররের জন্য দরকারি কিছু না যে জিমে গিয়েই ব্যায়াম করতে হবে , ছবি তুলে ভারতি এলিট পতিতাদের ফলো করতে হবে।

আইস মাসাজঃ বরফ দিয়ে স্তনে মাসাজ করতে পারেন। বরফের শীতলতা স্তনের টাইটনেস কিছুটা হলেও ফিরিয়ে আনতে হেল্প করতে পারে।

ব্রেস্ট লিফটিংঃ যাদের দুধ বেশিই ঝুলে গেছে, ঘরোয়া ভাবে কোন কিছুতেই ব্রেস্ট এর সাইজ ঠিক হচ্ছে না এবং সাইজ বেশিইইই খারাপ তাদের জন্যই ব্রেস্ট লিফটিং এবং এটি ডাক্তারের অধিনে করতে হয়।

ক্রিমঃ বাজারে স্তনের জন্য ক্রিম পাওয়া যায়। ক্রিম গুলোও ঝুলে যাওয়া ব্রেস্ট টাইট করতে হেল্প করে। তবে কোন ক্রিম কিনবেন তা দেখে জেনে শুনেই কিনবেন কেননা ক্ষতি হলে সবই গেলো।

লেজার ট্রিটমেন্টঃ যেহেতু আপনি বাংলাদেশি এবং বাংলায় সার্চ করে এই পোস্টে আসছেন তাই বুঝে নিচ্ছি লেজারে আপনি যাবেন না। তাই বিস্তারিত তে গেলাম না।

উপসংহারঃ বেশি বেশি পান করুন। বরফ দিয়ে নিয়মিত মাসাজ করুন। সঠিক সাইজের ব্রা পড়বেন। ব্রা ছাড়া থাকবেন না আবার ভুল সাইজের ব্রা থেকেও দূরে থাকবেন।
সবচেয়ে ভালো হয় স্তন ঝুলে যাওয়ার আগেই ব্রেস্ট নিয়ে সচেতন হলে কেননা স্তন ঝুলা যাওয়া থেকে বিরত রাখা ঝলে যাওয়া ব্রেস্ট টাইট করার চেয়ে সহজ বলেই মনে করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *