তেলে শুধু এই জিনিস টি যোগ করুন চুল এতটাই লম্বা ঘন হবে যে সামলাতে পারবেন না

নিয়মিত মাথার ত্বক ম্যাসাজ করুন
নানী-দাদীরা বলতেন না যে তেল দিলে চুল (hair) লম্বা হয়? আসলে কিন্তু তেলে চুল (hair) লম্বা হয় না, চুল লম্বা হয় তেল দেয়ার সময় মাথায় যে ম্যাসাজ করা পড়ে, ঠিক সেই কারণে। চুলের গোঁড়ায় ম্যাসাজ করলে এতে মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে, ফলে চুলের ফলিকল গুলো উদ্দীপিত হয়, চুল পড়া বন্ধ হয় এবং চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত হয়। সপ্তাহে কমপক্ষে দুদিন তেল দিয়ে ভালো করে চুলের (hair) গোঁড়ায় ম্যাসাজ করুন। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। বাড়তি সুবিধা হিসাবে তেলের কারণে চুলে ডিপ কন্ডিশনিং-এর কাজটাও হয়ে যাবে। চুলে তেল দিতে না চাইলে কেবল আঙ্গুল দিয়েও নিজের মাথার ত্বক ম্যাসাজ করতে পারেন। বা চুলে শ্যাম্পু করার সময়েই ম্যাসাজের কাজ সেরে নিতে পারেন।

মহৌষধ ক্যাস্টর অয়েল (oil)

ক্যাস্টর অয়েল (oil)হচ্ছে চুল ঘন ও এর বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করার সবচাইতে দারুণ উপায়। ভিটামিন (vitamin) ই এবং প্রয়োজনীয় ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ এই তেলের কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। বরং চুল দ্রুত বড় করতে দারুণ ভূমিকা রাখে এই তেল।

সমান সমান পরিমাণ ক্যাস্টর অয়েল (oil)ও নারিকেল তেল/অলিভ অয়েল/ বাদাম তেল ইত্যাদি পরস্পরের সাথে মিশিয়ে নিন রবং চুলের গোঁড়ায় ম্যাসাজ করে লাগান। ৩০-৩৫ মিনিট চুলে রাখুন, তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে কমপক্ষে দুবার করবেন। দুবার না পারলে কমপক্ষে একবার। স্ট্রেস কমাতে চাইলে যোগ করতে পারেন কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল(oil)।

একটি বিশেষ হেয়ার মাস্ক

চুলের(hair) বৃদ্ধি বাড়াতে ত্বরান্বিত করতে ডিমের কোন জুড়ি নেই। ডিমে আছে উচ্চ মাত্রার প্রোটিন এবং আয়রন, ফসফরাস, জিংক, সেলেনিয়াম, সালফার। একটি বা দুটি ডিম নিন চুলের(hair) দৈর্ঘ্য অনুযায়ী। সাথে যোগ করে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল (oil)কয়েক চামচ। এই মিশ্রণ চুলে ম্যাসাজ করে লাগান। শুকিয়ে গেলে শ্যাম্পু করে ফেলুন। মাথায় খুশকি থাকলে যোগ করুন কয়েক চামচ লেবুর রস।

আরো পড়ুন  চুলের আগা ফাটা রোধ করার ঘরোয়া উপায়

ঘন কালো লম্বা চুলে (hair) বহুগুণে হেসে উঠুক আপনার সৌন্দর্য। ভালো থাকুন।

কতবার এবং কোন সময় শারীরিক সম্পর্ক করলে নারী গর্ভ’বতী হতে পারে, মনোযোগ দিয়ে পড়ৃুন
বিয়ের কিছুদিন গেল না আর বাকিদের প্রথম প্রশ্ন হচ্ছে ‘কোন সুখবর আছে কি ?’ আজকাল দম্পতিরা শিশুকে (baby) জন্ম দেওয়াও পরিকল্পনা করেই করে । পরিকল্পনা করেই এটা করা হয় যে বিয়ের কত মাস বা কত বছর পর বাচ্চা (baby) হওয়া দরকার । কিন্তু গর্ভবতী হওয়া এত সহজ নয়। কারুর জন্য তো প্রথম সপ্তাহেই হয়ে যায়, আর কাউকে কয়েক

মাস চেষ্টা করতে হয় ।যদি আপনি বুঝতে পারেন যে কতবার এবং কীভাবে গর্ভধারণের জন্য সম্পর্ক (relation) গড়ে তুলতে হবে, তাহলে আপনাকে অনেক মাসের জন্য চেষ্টা করতে হবে না। দম্পতিদের এই ব্যাপারে সাধারণ জ্ঞান নেই, তাই তারা কিছু ভুল করে ফেলে । এর ফলে ব্যপার আরো খারাপ হয়ে যায় ।

সব পরে, কোন সময় এবং কতবার সম্পর্ক (relation) তৈরি করা উচিত যাতে আপনি আপনার পরিকল্পনা অনুযায়ী গর্ভবতী হতে পারবেন, এর সম্পর্কে (relation) কথা বলা যাক ।কিভাবে গর্ভবতী হবেন ?যখন পুরুষের প্রজননকেন্দ্র থেকে ‘শুক্রাণু’ মহিলার ডিম্বাশয়ে উপস্থিত ডিমকে পূরণ করে এবং নিষিক্ত করে, তখন শুধুমাত্র একটি মহিলা গর্ভবতী হয়। সম্পর্ক (relation) কতবার তৈরি করবেন ?

আরো পড়ুন  চিকন চুল মোটা করার ঘরোয়া ৫টি উপায় জেনে নিন

একটি প্যারেন্টিং ওয়েবসাইট ১,১৯৪ পিতা-মাতার উপর একটি গবেষণা করেছিল। এই গবেষণায় তারা জানতে চেয়েছিল যে, যে দম্পতি শিশুর (baby) পরিকল্পনা করছেন, তারা কতবার শারীরিক সম্পর্ক করেছিল।
এই ফলাফল সামনে এসেছিলএই গবেষণার মতে, দম্পতি অভিভাবক হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যখন, তারা তখন গড়ে ৭৮ বার শারীরিক সম্পর্ক (relation) তৈরি করার পর সাফল্য পেয়েছেন। তারা ছয় মাসের মধ্যে এটি করেন, মানে এক মাসে ১৩ বার সম্পর্ক স্থাপন করেছেন ।এই অবস্থান সেরা

কিছু লোক বিশ্বাস করে যে গর্ভধারন করা অবস্থানের উপরও নির্ভর করে। প্রায় তিন চতুর্দশ মানুষই মিশনারি পজিশন কে সেরা হিসেবে বিবেচিত করেছেন । যখন ৩৬% দম্পতি ডগি স্টাইল অনুসরণ করেন।এখন গর্ভাবস্থার (pregnant) জন্য সঠিক সময়ের সম্পর্কে (relation) কথা বলা যাক। ‘ডিম্বস্ফোটন’ সময় সেরাবিশেষজ্ঞদের মতে ‘ ডিম্বস্ফোটন’ কে বোঝা আর তার পাঁচ দিন আগে এবং সেই দিন সম্পর্ক করলে গর্ভধারণের সম্ভাবনা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি হতে পারে।
কি হয় ‘ডিম্বস্ফোটনে’ ?

‘ডিম্বস্ফোটন’ যেকোন মহিলার পিরিয়ডের সময় একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস । এই প্রক্রিয়ায় পরিপক্ক ডিম ডিম্বাশয় থেকে মুক্তি পায় এবং গর্ভধারণ করার জন্য প্রস্তুত হয় ।
এতটা হয় জীবনডিম্বস্ফোটন প্রক্রিয়ার মধ্যে মুক্তি প্রাপ্ত ডিম ১২-২৪ ঘন্টার জন্য ফলিত হতে পারে। এক ব্যক্তির যৌন সম্পর্কের (relation) পর, মহিলার প্রজনন পদ্ধতিতে সেটি ৫ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।
শ্রেষ্ঠ সুযোগ

গর্ভবতী হওয়ার বেশিরভাগ সম্ভাবনা তখনই, যখন ডিম্বস্ফোটনের সময় শুক্রাণু গর্ভনালীর মধ্যে উপস্থিত থাকে।
কখন ডিম্বস্ফোটন ঘটে ?২৮ দিনের মাসিক ধর্মে ডিম্বস্ফোটন সাধারণত পরের পিরিয়ডের সময়ের ১৪ দিন আগে হয়। বেশিরভাগ মহিলার আবার ঋতুকালের মধ্যপন্থির চার দিন আগে বা পরে ডিম্বস্ফোটন হয় ।
ক্যালেন্ডার তৈরি করুন

আরো পড়ুন  চুল পড়া রোধ করার প্রাকৃতিক উপায় জেনে নিন

অনেক মহিলার মাসিক চক্র ২৮ দিন হয় না। এই ক্ষেত্রে, এই নারীরা একটি মেনসস্টেসন ক্যালেন্ডারের সাহায্যে সাইকেলের দৈর্ঘ্য এবং মধ্যপন্থী দৈর্ঘ্য অনুমান করতে পারেন।যোনির সিক্রেশন থেকে জানুনঋতু ক্যালেন্ডার ছাড়াও ডিম্বস্ফোটনের একটি ধারণা পেতে অন্যান্য উপায় আছে। এদের মধ্যে একটি হলো যোনিপরিষদ সচেতনতার উপর ফোকাস করা। ডিম্বস্ফোটনের আগে, যোনির স্রাব পরিষ্কার, আর্দ্র এবং নমনীয় হয়ে যায় ।

এটা পরে ঘটে ডিম্বস্ফোটনের পরেই অবিলম্বে সার্ভিকাল শ্লেষ্মা হ্রাস পায় এবং এটি পুরু, ধোঁয়াটে এবং অদৃশ্য হয়ে যায়।তাপমাত্রায় পার্থক্যশরীরের মৌলিক তাপমাত্রায় (বিশ্রাম অবস্থায় শরীরের তাপমাত্রা) নজর রেখেও ডিম্বস্ফোটনের পর্যবেক্ষণ করা যেতে পারে। প্রতিদিন সকালে বিছানা ছেড়ে যাওয়ার আগে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করুন। তাপমাত্রা বৃদ্ধির ২-৩ দিন আগে পর্যন্ত, মহিলারা সবচেয়ে উর্বর হয়।
অনেক পরীক্ষা আছে

বাজারে অনেক ‘গর্ভাবস্থা (pregnant) পরীক্ষা’ কিট উপস্থিত রয়েছে। একইভাবে, ডিম্বস্ফোটনের সনাক্তকরণ পরীক্ষাও করা যেতে পারে। এই কারণেই ডিম্বস্ফোটন কিট বাজারে পাওয়া যায়।
ওজন খুব সত্যবিশেষজ্ঞরাও বিশ্বাস করেন যে ওভারওয়েট এবং ওজনযুক্ত মহিলাদের ডিম্বস্ফোটন গোলযোগের উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে। যে কোন মহিলার জন্য তাদের ওজন ব্যালেন্স রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এই সমস্ত পয়েন্ট পড়ার পরে, আপনার অনেক সন্দেহ পরিষ্কার হয়ে গেছে । তবুও, কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করার আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *