মি’লনের সময় নারীকে দ্রুত উত্তে’জিত করার সহজ কৌশল

মেয়েদের শরীরে এমন কিছু জায়গা আছে যেগুলো স্পর্শ (touch) করলে মেয়েরা অনেক বেশি টার্ন অন হয়ে পরে। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ছেলেরা সেসব জায়গার প্রতি খেয়াল দেয় না।কিন্তু কিছু জায়গায় স্পর্শ (touch) করে, ভালবেসে, পাগল করে দেওয়া যায় নারীদেরকে।

ঘাড়ের পিছন দিকঃ মেয়েদের শরীরে এটাই সবচেয়ে সেক্সুয়ালি টার্নিং অন জায়গা। ছেলেরা এজায়গার উপর খুব অল্পই সময় দেয়। কিন্তু শুধু এখানে স্পর্শ (touch) করেও একজন নারীকে দ্রুত উত্তেজিত (excited) সম্ভব। একজন মেয়ে যখন সামান্য টার্ন অন থাকে তখন তার পেছন দিকে চুল সরিয়ে হাত বুলিয়ে দেখুন। আস্তে আস্তে কিস করুন। দেখবেন সে পাগল হয়ে যাবে। সামান্য লিক করুন, সুড়সুড়ি দিন। এরপর তার ব্রেস্টের দিকে যান। দেখবেন সে কতটা হর্নি হয়ে যায়।

কানঃ কানে হালকা স্পর্শ (touch) , চুমু অনেক বেশি সেক্সুয়ালি এরোসড করে দেয় মেয়েদের। কানের উপর আস্তে আস্তে নিঃশ্বাস ফেললে পাগল হয়ে যায় সে। হালকা কামড় দিতে পারেন কানের যে কোন জায়গায়। লিক করতে পারেন কানের চার পাশে যে কোন জায়গায়। কিন্তু কানের ছিদ্রে নয়, এটি মেয়েদের জন্যে একটা টার্ন অফ।

থাইঃ নারীকে দ্রুত উত্তেজিত (excited) করেত আসল জায়গা স্পর্শ (touch) না করেও তার আশে পাশের থাই এর নরম জায়গাগুলো স্পর্শ করেই তাকে হর্নি করে দিতে পারেন। হাত এবং মুখ কাজে লাগান, কিস করুন। কিন্তু আসল জায়গায় যাওয়ার আগে সরে আসুন, দেখবেন সে কি করে।

আরো পড়ুন  পেটপুরে ভাত খাওয়ার পরেও স্লিম থাকবেন কিভাবে?

হাতের তালু ও পায়ের পাতাঃ হাত দিয়ে প্রতি মুহূর্ত স্পর্শ করছেন, কিন্তু তার হাতেই যে লুকিয়ে আছে অসংখ্য সেক্সুয়াল ফিলিংস। হাতের উপর আংগুল চালান, সুড়সুড়ি দিন। এটি যেন তাকে পরবর্তী সেক্সুয়াল এক্টিভিটিরই মেসেজ দেওয়া। দেখবেন সেও সাড়া দেবে। হাতের আঙ্গুল মুখে নিয়ে চুষতে পারেন। এটিও টার্ন অন করে তাকে।

পাঃ নারীকে দ্রুত উত্তেজিত (excited) করতে পায়ে হাত বুলিয়ে সুড়সুড়ি দিলে অনেকেই বেশ মজা পায়। পায়ের আঙ্গুল মুখে নিয়ে চুষলেও টার্ন অন হয় অনেকেই। তবে কিছু মেয়ের এটি পছন্দ নয়। জিজ্ঞেস করে নিন আপনার সঙ্গিনীকেই।

পিঠঃ পিঠ, বিশেষ করে পিঠের নিচে, কোমড়ের দিকের অংশটাতে স্পর্শ (touch) ও আদর চায় মেয়েরা। মেরুদন্ড বরাবর চুমু দিতে দিতে নিচে নেমে যান, কিস করুন সে বিশেষ জায়গাটিতে। তার সেক্স করার মুড আরো বাড়বেই।

কলার বোনঃ নারীকে দ্রুত উত্তেজিত (excited)করতে ব্রেস্টের দিকে যাওয়ার আগে, তার গলার নিচে, কলার বোনের দিকে নজর দিন একটু। জিহবা দিয়ে সার্কেল করে লিক করুন। হালকা কামড় দিন। এতে সে বুঝবে আপনি কতটা চান আপনার সঙ্গিনীকে।

আরো পড়ুন  স্পর্শকাতর গোপন অঙ্গের কালো দাগ দূর করার উপায়

যেভাবে সহ’বাস করলে মেয়েরা বেশি আরাম পায়

‘ড’গি স্টাইল সহ’বাস” বিষয়টি নিয়ে ভয় পাবার কিচ্ছু নেই। ডগি স্টাইল সবাস বলতে এটাকেই বোঝায় যে পুরুষটি (male) পেছন দিক থেকে নারীর দেশে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করাবেন। অনেকেই “অ্যানাল সহবাস” বা নিতম্বে (মূলত মলদ্বারে) পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করিয়ে শারীরিক মিলনের সাথে “ডগি স্টাইল সহবাস”কে গুলিয়ে ফেলেন। তবে এটা জরুরি নয় যে ডগি স্টাইল সহবাস করলে অ্যানাল সহবাস হতে হবে বা পুরুষাঙ্গটি মলদ্বারে প্রবেশ করাতে হবে।

পেছন থেকেও নারীর গোপ’নাঙ্গে পু’রুষাঙ্গ প্রবেশ করানো যায় আর মূলত সেটাই হচ্ছে ডগি স্টাইল সহবাস। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে “অ্যানাল সহবাস” সাধারণত নারীদের জন্য কষ্টদায়ক। প্রায় কোন নারীই এই ব্যাপারটি উপভোগ করেন না। এবং এতে ব্যথা পাবারও সমূহ সম্ভাবনা থাকে। কেবল পর্ণ ভিডিওতেই এই ব্যাপারটির আধিপত্য দেখা যায়।

ড’গি স্টা’ইল সহবাস কীভাবে করে?
বিষয়টি আহামরি কঠিন কিছু নয়। অনেক নারীই এটা বলে থাকেন যে ডগি স্টাইল সহবাস তাঁদের অরগাজম তাড়াতাড়ি আসে। এটা করার জন্য নারী আর আর পুরুষ (male) মুখোমুখি অবস্থায় শারীরিক মিলন না করে নারীটি পেছন ফেরেন এবং পুরুষ (male) পেছন থেকে গোপনাঙ্গে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করিয়ে থাকেন।

এক্ষেত্রে নারী হাঁটু ভাঁজ করে নিতম্ব উঁচু করে বসতে পারেন, এতে পুরুষটির (male) পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করাতে সুবিধা হয়।আবার নারী দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থাতেও সামনে ঝুঁকে বা দেয়ালে ভর দিয়ে নিতম্ব উঁচু করে ধরতে পারেন, সেভাবেই ডগি স্টাইল করা সম্ভব। নিজেদের সুবিধা মত যে কোন পজিশনেই ডগি স্টাইল সহবাস করা সম্ভব।

আরো পড়ুন  পেটের মেদ কমানোর সহজ উপায় জেনে নিন

ড’গি স্টা’ইল সহ’বাসে যে ব্যাপারগুলো মনে রাখবেন
-নারীর অনুমতি না নিয়ে পুরুষ (male) অ্যানাল সহবাস করার চেষ্টা করবেন না বা মলদ্বারে প্রবেশের চেষ্টা করবেন না না। গোপ’নাঙ্গে পুরুষাঙ্গের প্রবেশ যতটা আনন্দময়, মলদ্বারে ততটাই কষ্টকর বেশিরভাগ নারীর ক্ষেত্রে। কেবল তখনই অ্যানাল সহবাস দিকেজান, যখন সঙ্গিনীও সেটি চায়।

–ডগি স্টাই’ল সহবাস নারীকে যেহেতু হাঁটু ও হাতের ওপরে ভর দিতে হয় অনেকটাই, তাই বিছানার ওপরে এটা করুন বা হাত-পায়ের নিচে পর্যাপ্ত সাপোর্ট দিন।-ডগি স্টাইল সহবাসের ক্ষেত্রে সোফা একটি চমৎকার উপাদান হতে পারে।-পুরুষেরা (male) ডগি স্টাইল সহবাস ভালোবাসেন, শারীরিক মিলনের দৃশ্যটিও তাঁদের উত্তেজনা বাড়াতে সহায়ক হয়। অন্যদিকে নারীরাও এই বিষয়টি পছন্দ করেন। এভাবে নারীর অনেক গভীরে প্রবেশ করা সম্ভব হয় পুরুষের জন্য।-পুরুষেরা ডগি স্টাইল সহবাসের সময় বেশি চাপ প্রয়োগ করবেন না। জেনে ও বুঝে নিন সঙ্গিনীর কোন সমস্যা হচ্ছে কিনা। এই অবস্থানে পুরুষের পক্ষে সবচাইতে বেশি প্রেসার দেয়া সম্ভব হয়। তবে অনেক নারীর জন্য সেটা কষ্টেরও হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *