নারীর যে ৬ টি দুর্বল জায়গা সম্পর্কে ছেলেরা জানে না

মেয়েদের (GIRLS) শরীরে এমন কিছু জায়গা আছে যেখানে স্পর্শ করলে মেয়েরা অনেক বেশি ‘টার্ন অন’ হয়ে পড়ে। কিন্তু বেশিরভাগ সময়ই ছেলেরা সেইসব অংশের দিকে নজর দেয় না। ফোরপ্লে সীমাবদ্ধ থাকে ব্রেস্ট, নিপলস আর কিসের মধ্যেই। তারপরেই ইন্টারকোর্স। ব্যাপারটা যেন একঘেয়েই। কিন্তু কিছু জায়গায় স্পর্শ করে, ভালবেসে, পাগল করে দেওয়া যায় মেয়েদের(GIRLS)।ঘাড়ের পিছন দিকে:মেয়েদের(GIRLS) শরীরে এটাই সবচেয়ে সেক্সুয়ালি টার্নিং অন এরিয়া। ছেলেরা কিন্তু অনেকসময় এই অংশটা এড়িয়ে যায়। কিন্তু শুধু এখানে স্পর্শ করেও একজন মহিলাকে দ্রুত উত্তেজিত সম্ভব। একজন মেয়ে যখন সামান্য টার্ন অন থাকে তখন তার পিছন দিকের চুল সরিয়ে ঘাড়ে হাত বুলিয়ে দেখুন। আস্তে আস্তে কিস করুন। দেখবেন আপনার সঙ্গিনী পাগল হয়ে যাবে। সামান্য লিক করুন, সুড়সুড়ি দিন। দেখবেন আপনার সঙ্গিনী উত্তেজিত হয়ে পড়েছেন।

কান: কানে হালকা স্পর্শ, চুম্বন অনেক বেশি ‘সেক্সুয়ালি অ্যাট্রাক্টেড’ করে দেয় মেয়েদের(GIRLS)। কানের উপর আস্তে আস্তে নিঃশ্বাস ফেললে পাগল হয়ে পড়বে আপনার সঙ্গিনী। হালকা কামড় দিতে পারেন কানের লতিতে। লিক করতে পারেন কানের চার পাশে যে কোন জায়গায়। কিন্তু কানের ছিদ্রে নয়, এটি মেয়েদের (GIRLS)জন্যে একটা টার্ন অফ

উরু বা থাই: মেয়েদের (GIRLS)দ্রুত উত্তেজিত করত তিন নম্বরটির পয়েন্টটির জুড়ি মেলা ভার। সঙ্গিনীর উরুর সফট স্পটে স্পর্শ করুন। দেখবেন সে কি করে।

হাতের তালু ও পায়ের পাতা: হাত দিয়ে প্রতি মুহূর্ত স্পর্শ করছেন, কিন্তু তার হাতেই যে লুকিয়ে আছে অসংখ্য সেক্সুয়াল ফিলিংস। সঙ্গিনীর হাতের উপর নিজের আঙুলগুলি বোলাতে থাকুন, সুড়সুড়ি দিন। এটিই যেন তাঁকে পরবর্তী সেক্সুয়াল অ্যাক্টিভিটিরই মেসেজ দেবে। দেখবেন সেও সাড়া দেবে। টার্ন অন করবে আপনার সঙ্গিনীকে।

আরো পড়ুন  যাঁর স্ত্রীর মাঝে এই ৪টি গুণ আছে সেই স্বামী সৌভাগ্যবান

পা: মহিলাদের দ্রুত উত্তেজিত করতে পায়ে হাত বুলিয়ে সুড়সুড়ি দিলে অনেকেই বেশ মজা পায়। তবে কিছু মেয়ের (GIRLS) এটি পছন্দ নয়। জিজ্ঞেস করে নিন আপনার সঙ্গিনীকেই।

পিঠ: পিঠ, বিশেষ করে পিঠের নিচে, কোমরের দিকের অংশটাতে স্পর্শ ও আদর চায় মেয়েরা(GIRLS) । মেরুদন্ড বরাবর চুমু দিতে দিতে নিচে নেমে যান। তাঁর সেক্স করার মুড আরও বাড়বেই।

কলার বোন: একটি মেয়েকে দ্রুত উত্তেজিত করতে তাঁর ব্রেস্টের দিকে যাওয়ার আগে, তার গলার নিচে, কলার বোনের দিকে নজর দিন। এতে সে বুঝবে আপনি কতটা চান আপনার সঙ্গিনীকে।

কতবার এবং কোন সময় শারীরিক সম্পর্ক করলে নারী গর্ভ’বতী হতে পারে, মনোযোগ দিয়ে পড়ৃুন

বিয়ের কিছুদিন গেল না আর বাকিদের প্রথম প্রশ্ন হচ্ছে ‘কোন সুখবর আছে কি ?’ আজকাল দম্পতিরা শিশুকে (baby) জন্ম দেওয়াও পরিকল্পনা করেই করে । পরিকল্পনা করেই এটা করা হয় যে বিয়ের কত মাস বা কত বছর পর বাচ্চা (baby) হওয়া দরকার । কিন্তু গর্ভবতী হওয়া এত সহজ নয়। কারুর জন্য তো প্রথম সপ্তাহেই হয়ে যায়, আর কাউকে কয়েক

মাস চেষ্টা করতে হয় ।যদি আপনি বুঝতে পারেন যে কতবার এবং কীভাবে গর্ভধারণের জন্য সম্পর্ক (relation) গড়ে তুলতে হবে, তাহলে আপনাকে অনেক মাসের জন্য চেষ্টা করতে হবে না। দম্পতিদের এই ব্যাপারে সাধারণ জ্ঞান নেই, তাই তারা কিছু ভুল করে ফেলে । এর ফলে ব্যপার আরো খারাপ হয়ে যায় ।

সব পরে, কোন সময় এবং কতবার সম্পর্ক (relation) তৈরি করা উচিত যাতে আপনি আপনার পরিকল্পনা অনুযায়ী গর্ভবতী হতে পারবেন, এর সম্পর্কে (relation) কথা বলা যাক ।কিভাবে গর্ভবতী হবেন ?যখন পুরুষের প্রজননকেন্দ্র থেকে ‘শুক্রাণু’ মহিলার ডিম্বাশয়ে উপস্থিত ডিমকে পূরণ করে এবং নিষিক্ত করে, তখন শুধুমাত্র একটি মহিলা গর্ভবতী হয়। সম্পর্ক (relation) কতবার তৈরি করবেন ?

একটি প্যারেন্টিং ওয়েবসাইট ১,১৯৪ পিতা-মাতার উপর একটি গবেষণা করেছিল। এই গবেষণায় তারা জানতে চেয়েছিল যে, যে দম্পতি শিশুর (baby) পরিকল্পনা করছেন, তারা কতবার শারীরিক সম্পর্ক করেছিল।
এই ফলাফল সামনে এসেছিলএই গবেষণার মতে, দম্পতি অভিভাবক হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যখন, তারা তখন গড়ে ৭৮ বার শারীরিক সম্পর্ক (relation) তৈরি করার পর সাফল্য পেয়েছেন। তারা ছয় মাসের মধ্যে এটি করেন, মানে এক মাসে ১৩ বার সম্পর্ক স্থাপন করেছেন ।এই অবস্থান সেরা

কিছু লোক বিশ্বাস করে যে গর্ভধারন করা অবস্থানের উপরও নির্ভর করে। প্রায় তিন চতুর্দশ মানুষই মিশনারি পজিশন কে সেরা হিসেবে বিবেচিত করেছেন । যখন ৩৬% দম্পতি ডগি স্টাইল অনুসরণ করেন।এখন গর্ভাবস্থার (pregnant) জন্য সঠিক সময়ের সম্পর্কে (relation) কথা বলা যাক। ‘ডিম্বস্ফোটন’ সময় সেরাবিশেষজ্ঞদের মতে ‘ ডিম্বস্ফোটন’ কে বোঝা আর তার পাঁচ দিন আগে এবং সেই দিন সম্পর্ক করলে গর্ভধারণের সম্ভাবনা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি হতে পারে।
কি হয় ‘ডিম্বস্ফোটনে’ ?

‘ডিম্বস্ফোটন’ যেকোন মহিলার পিরিয়ডের সময় একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস । এই প্রক্রিয়ায় পরিপক্ক ডিম ডিম্বাশয় থেকে মুক্তি পায় এবং গর্ভধারণ করার জন্য প্রস্তুত হয় ।
এতটা হয় জীবনডিম্বস্ফোটন প্রক্রিয়ার মধ্যে মুক্তি প্রাপ্ত ডিম ১২-২৪ ঘন্টার জন্য ফলিত হতে পারে। এক ব্যক্তির যৌন সম্পর্কের (relation) পর, মহিলার প্রজনন পদ্ধতিতে সেটি ৫ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।
শ্রেষ্ঠ সুযোগ

আরো পড়ুন  দেখুন যাদের শরীরে এই ৪টি চিহ্ন আছে, তারা ভবিষ্যতে কোটিপতি হবেই -Lucky 4 Sign

গর্ভবতী হওয়ার বেশিরভাগ সম্ভাবনা তখনই, যখন ডিম্বস্ফোটনের সময় শুক্রাণু গর্ভনালীর মধ্যে উপস্থিত থাকে।
কখন ডিম্বস্ফোটন ঘটে ?২৮ দিনের মাসিক ধর্মে ডিম্বস্ফোটন সাধারণত পরের পিরিয়ডের সময়ের ১৪ দিন আগে হয়। বেশিরভাগ মহিলার আবার ঋতুকালের মধ্যপন্থির চার দিন আগে বা পরে ডিম্বস্ফোটন হয় ।
ক্যালেন্ডার তৈরি করুন

অনেক মহিলার মাসিক চক্র ২৮ দিন হয় না। এই ক্ষেত্রে, এই নারীরা একটি মেনসস্টেসন ক্যালেন্ডারের সাহায্যে সাইকেলের দৈর্ঘ্য এবং মধ্যপন্থী দৈর্ঘ্য অনুমান করতে পারেন।যোনির সিক্রেশন থেকে জানুনঋতু ক্যালেন্ডার ছাড়াও ডিম্বস্ফোটনের একটি ধারণা পেতে অন্যান্য উপায় আছে। এদের মধ্যে একটি হলো যোনিপরিষদ সচেতনতার উপর ফোকাস করা। ডিম্বস্ফোটনের আগে, যোনির স্রাব পরিষ্কার, আর্দ্র এবং নমনীয় হয়ে যায় ।

এটা পরে ঘটে ডিম্বস্ফোটনের পরেই অবিলম্বে সার্ভিকাল শ্লেষ্মা হ্রাস পায় এবং এটি পুরু, ধোঁয়াটে এবং অদৃশ্য হয়ে যায়।তাপমাত্রায় পার্থক্যশরীরের মৌলিক তাপমাত্রায় (বিশ্রাম অবস্থায় শরীরের তাপমাত্রা) নজর রেখেও ডিম্বস্ফোটনের পর্যবেক্ষণ করা যেতে পারে। প্রতিদিন সকালে বিছানা ছেড়ে যাওয়ার আগে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করুন। তাপমাত্রা বৃদ্ধির ২-৩ দিন আগে পর্যন্ত, মহিলারা সবচেয়ে উর্বর হয়।
অনেক পরীক্ষা আছে

বাজারে অনেক ‘গর্ভাবস্থা (pregnant) পরীক্ষা’ কিট উপস্থিত রয়েছে। একইভাবে, ডিম্বস্ফোটনের সনাক্তকরণ পরীক্ষাও করা যেতে পারে। এই কারণেই ডিম্বস্ফোটন কিট বাজারে পাওয়া যায়।
ওজন খুব সত্যবিশেষজ্ঞরাও বিশ্বাস করেন যে ওভারওয়েট এবং ওজনযুক্ত মহিলাদের ডিম্বস্ফোটন গোলযোগের উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে। যে কোন মহিলার জন্য তাদের ওজন ব্যালেন্স রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এই সমস্ত পয়েন্ট পড়ার পরে, আপনার অনেক সন্দেহ পরিষ্কার হয়ে গেছে । তবুও, কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করার আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.