রূপচর্চায় তেজপাতার বিস্ময়কর ৫টি ব্যবহার

তেজপাতা রান্নার স্বাদ গন্ধ বাড়িয়ে দেয় বহুগুণ। এর পুষ্টিগুণও অনেক। কাশি সারাতেও তেজপাতা(Baypatha) বেশ কার্যকরী। কিন্তু আপনি জানেন কি, রূপচর্চায়ও তেজপাতার রয়েছে অসাধারাণ কিছু ব্যবহার? চুলের খুশকি(Dandruff) দূর করা থেকে শুরু করে ব্রণ দূর করা পর্যন্ত রয়েছে তেজপাতার ব্যবহার! আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক রূপচর্চায় তেজপাতার বিবিধ ব্যবহার।

১। খুশকি দূর করতে
চুলের খুশকি দূর করতে তেজপাতা অনেক কার্যকরী। শুকানো তেজপাতার গুঁড়োর সাথে টক দই(sour yogurt) মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এবার এটি চুলে লাগান। কিছুক্ষণ পর শ্যাম্পু(Shampoo) করে ফেলুন। এটি খুশকি দূর করার পাশাপাশি মাথার চুলকানি দূর করে দিয়ে থাকে।

২। ব্রণ দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে
১ লিটার পানির মধ্যে ১০টি তেজপাতা গুঁড়া(Bay leaf powder) করে নিন। এবার এটি অল্প আঁচে ১০ মিনিট ফুটিয়ে নিন। ঠান্ডা হয়ে গেলে ছেঁকে পানিটি আলাদা করে ফেলুন। সকালে ঘুম থেকে উঠে আর রাতে ঘুমাতে যাবার আগে এই দুইবার নিয়ম করে এই পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন। এটি ব্রণ হওয়ার প্রবণতা কমিয়ে দেয় এর সাথে ত্বকের(Skin) উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে থাকে।

আরো পড়ুন  চটজলদি চুলের যত্ন নিবেন কীভাবে?

৩। উকুন দূর করতে
৫০ গ্রাম তেজপাতা গুঁড়ো ৪০০ মিলিগ্রাম পানিতে জ্বাল দিয়ে ১০০ গ্রাম করে ফেলুন। শুকিয়ে গেলে এই পানি ছেঁকে তেজপাতা গুঁড়ো আলাদা করে নিন। এবার এটি মাথার তালু এবং চুলে ভাল করে ম্যাসাজ করে নিন। ৩-৪ ঘন্টার পর এটি ধুয়ে ফেলুন। এটি উকুন(Lice) দূর করতে বেশ কার্যকরী।

৪। দাঁত সাদা করতে
তেজপাতা গুঁড়ো করে পেস্টের সাথে মিশিয়ে দাঁত(Teeth) মাজুন। এটি দাঁতের হলদেটে ভাব দূর করে মাড়ির যত্ন নিয়ে থাকে। আপনি চাইলে শুধু তেজপাতা গুঁড়ো দিয়ে দাঁত ব্রাশ করতে পারেন।

৫। কন্ডিশনার হিসেবে ব্যবহার
কিছু তেজপাতা পানিতে সিদ্ধ করে নিন। এবার এটি ছেঁকে ঠাণ্ডা করে নিন। শ্যাম্পু(Shampoo) করার পর এই পানি দিয়ে চুল(Hair) ধুয়ে ফেলুন। এটি কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করবে। নিয়মিত ব্যবহারে এটি চুলকে ঝলমলে করে তুলবে।

আরো পড়ুন  মাত্র ১ দিনে চুলকে নরম মোলায়েম ও মসৃণ বানিয়ে চুলের স্টাইল পাল্টে নিন সেলিব্রেটিদের মত

তেজপাতার কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতাঃ
১. অনেক সময় অনেকের ঘন ঘন তেষ্টা পায়। সে ক্ষেত্রে ১ লিটার জলে তেজপাতা(Baypatha) সেদ্ধ করে ছেঁকে নিয়ে ২-৩ বার খান। দেখবেন বার বার তেষ্টা পাচ্ছে না।

২. যাঁরা খুব রোগা, তাঁদের জন্য তেজপাতা খুব উপকারী। চেহারা ফিরিয়ে আনতে তেজপাতা কুচিয়ে, থেঁতলে করে ২ কাপ গরম জলে ১০-১২ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন। এরপর ছেঁকে নিয়ে ২ বার করে ২ সপ্তাহ খেলে শরীরে জোর আসে, লাবণ্য ফিরে আসে।

৩. দাদ হলে তেজপাতা থেঁতলে করে ৪ কাপ জলে সেদ্ধ করে, সেই জল সকাল ও বিকেল খেতে হবে। ৪-৫ সপ্তাহ খেলেই দাদ-হাজা-চুলকানি সেরে যাবে। এ ছাড়া ওই জল তুলোতে ভিজিয়ে দাদের জায়গায় দিয়ে মুছে নিলেও কাজ হয়।

আরো পড়ুন  চীন দেশের মেয়েদের ত্বক কেন এত সুন্দর? জানুন সেই টিপস

৪. অনেক সময় প্রস্রাবের রং রক্তবর্ণ হয়। সে ক্ষেত্রে তেজপাতা ২-৩ কাপ গরম জলে ২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। এরপর ছেঁকে ২-৩ ঘণ্টা অন্তর এই জল(Water) খেলে। প্রস্রাবের রং সাদা হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *