Breaking News

যে গোপন ১০ টি রোগ থেকে চিরতরে মুক্তি দেবে এই অশ্বত্থ গাছ

গ্রামে কিংবা শহরে খুব সহজেই দেখা মেলে অশ্বত্থ গাছের। যা ২৪ ঘণ্টাই আমাদের অক্সিজেন দেয়। অনেকেই এর ছায়ায় বসে প্রাণ জুড়ায়। তবে শুধু অক্সিজেন আর ছায়াই নয়, মানবদেহের অনেক গোপন রোগের প্রতিষেধক হিসেবেও অশ্বত্থ গাছ খুবই উপকারী।
আয়ুর্বেদ শাস্ত্রমতে বেশ কিছু ওষুধ তৈরিতে অশ্বত্থের পাতা ব্যবহার করা হয়। শাস্ত্রমতে, কয়েক ধরনের হৃদরোগে অশ্বত্থের পাতা, ফল, ফুল, ছাল ও শেকড় বেশ কাজে দেয়। সচরাচর দেখা দেয় এমন কিছু স্বাস্থ্যসমস্যায়, এমনকি গোপন কিছু রোগ সারাতেও অশ্বত্থ গাছ বেশ কার্যকরী। চলুন জেনে নেয়া যাক অশ্বত্থ গাছের গুণাগুণ সম্পর্কে-

গর্ভধারণ

যারা স্বাভাবিক গর্ভধারণে জটিলতার মুখে পড়ছেন তারা পিপল বা অশ্বথের শুকনো ফল থেকে উপকার পেতে পারেন। এই ফল শুকনো অবস্থায় সংগ্রহ করে থেঁতো বা গুঁড়া করে চূর্ণ করে নিন এবং কাপড়ে ছেঁকে নিন। যে সমস্ত নারী নিঃসন্তান তাদের এই চূর্ণ ৫ গ্রাম মাত্রায় এক গ্লাস হালকা গরম দুধ (খাঁটি) সহযোগে কয়েক মাস নিয়মিত সেবন করালে একপর্যায়ে অবশ্যই গর্ভধারণ হবে। শুধুমাত্র ঋতুস্রাবের দিনগুলোতে এই ওষুধ সেবন বন্ধ রাখতে হবে।

আরো পড়ুন  ব্যায়াম ডায়েট ছাড়াই ওজন কমিয়ে ফেলুন ৬ টি সহজ উপায়ে

শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি

হাঁপানির টান শুরু হলে অশ্বথের শুকনো ছালের চূর্ণ ৫ গ্রাম মাত্রায় নিয়ে হালকা গরম পানির সঙ্গে দিনে ৩ বার করে সেবন করলে রোগী আরাম বোধ করবে। নিয়মিত ব্যবহারে ধীরে ধীরে রোগও প্রশমিত হবে।

নাক দিয়ে রক্ত পড়া

৫০ গ্রাম অশ্বথের দুধ বা আঠাতে সমমাত্রায় মিছরি মিশিয়ে চূর্ণ করে নিন। প্রত্যেক দিন সকালে ৩ গ্রাম করে এই চূর্ণ সেবন করলে শরীরের গরম শান্ত হয় এবং নাক দিয়ে রক্ত পড়া প্রশমিত হয়।

পুরুষদের দুর্বলতা

পুরুষদের বিশেষ করে মধ্যবয়সী পুরুষদের অনেক সময় এই যৌন সমস্যাটি অর্থাৎ শীঘ্রপতন সমস্যা দেখা যায়। এমন হলে প্রথম অবস্থায় অশ্বথ গাছের সাদা রস ১১ ফোঁটা করে চিনি বা মিষ্টিজাতীয় কিছুর সঙ্গে নিয়মিত কিছুদিন সেবন করলে সমস্যা দূর হয়। নিয়মিত কয়েক মাস এই রস সেবন করলে ভালো ফল মেলে।

হৃৎপিণ্ডের জন্য

গোটা ১৫ অশ্বত্থের পাতা একটি পাতিলে নিয়ে সিদ্ধ করুন। পানি শুকিয়ে তিন ভাগের একভাগ হলে চুলা থেকে নামান। এবার এর ক্কাথগুলো তিন ভাগ করুন। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর থেকে তিন ঘণ্টা পরপর দৈনিক তিনবার পান করুন এই তরল। কয়েকদিন চালিয়ে যান। এটা আপনার হৃদপিণ্ডকে মজবুত করবে এবং বিভিন্ন ধরনের হৃদরোগ প্রতিরোধ করবে।

আরো পড়ুন  যেভাবে খুব সহজে নারীকে অর্গাজম এর স্বাদ দেবেন

স্মরণশক্তি

অশ্বত্থের পাকা ফল স্মরণশক্তি বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখে। আয়ুর্বেদ চিকিৎসা মতে প্রতিদিন পাঁচটি করে অশ্বথের পাকা ফল গ্রহণ স্মরণশক্তি বৃদ্ধি করে। এটা শরীরকেও সুপুষ্ট, মজবুত করে।

দাঁতব্যথা উপসম

দাঁত পরিষ্কার ও মজবুত করার জন্য এর শাখা থেকে বানানো মেসওয়াক ব্যবহার করুন। এই দাঁতন দন্তব্যথাও দূর করে থাকে। অশ্বথের কচি পাতা গোলমরিচের সঙ্গে বেটে মটরের দানার মতো ছোট ছোট গুটি তৈরি করে নিন। দাঁতব্যথা দেখা দিলে এমনি একটা গুটি বা বড়ি ব্যথাযুক্ত দাঁতের নিচে কিছুক্ষণ চেপে রাখলে দাঁতব্যথা সেরে যায়।

অস্বাভাবিক মাত্রায় অশ্রু

যদি চোখ দিয়ে অনবরত জল পড়ে তাহলে অশ্বথের কয়েকটি কচি পাতা বা ৫টি মুকুল নিয়ে এক বাটি পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ঘুম থেকে উঠে সেই পানি দিয়ে চোখ পরিষ্কার করলে অশ্রুঝরা বন্ধ হয়ে যাবে। এছাড়া কচি পাতার রসে বা মুকুলের রসে বিশুদ্ধ মধু মিশিয়ে কাঠি দিয়ে চোখে প্রতিদিন কাজল পড়ার মতো লাগালে চোখের লাল ভাব বা জ্বালা দূর হয়।

আরো পড়ুন  দাঁতের পাথর দূর করুন ডেন্টিস্ট ছাড়াই সবচেয়ে কার্যকরী উপায়ে ঘরে বসে নিজেই

কৃমি

অশ্বথের পঞ্চাঙ্গ চূর্ণ এবং গুঁড়া সমান মাত্রায় মিশিয়ে মৌরির আরকের সঙ্গে দিনে ২ বার সেবন করলে পেটের কৃমি মরে যায়। ছোট শিশুদের পক্ষে এটি দ্রুত ফলপ্রদ ওষুধি।

কোষ্ঠকাঠিন্য

কখনো কখনো অন্ত্রের মধ্যে থাকা জল শুকাতে শুরু করে, যার ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য হয়। এমন অবস্থায় সমাধান দেবে এই গাছ। অশ্বথের পাতা ছায়ায় শুকিয়ে চূর্ণ করে তাতে গুড় মিশিয়ে ছোট ছোট বড়ি তৈরি করে নিন। কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিলে রাতে শোওয়ার আগে ২টি করে বড়ি হালকা গরম দুধের সঙ্গে সেবন করুন। দ্রুত আরাম মিলবে এবং পেট খোলাসা হয়ে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *