Breaking News

যে কারণে করোনাভাইরাসের সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে টাক মাথার লোকেরা

বিশ্বের চলমান মহামারি করোনাভাইরাস আক্রমণের সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন টাক মাথার লোকেরা। সম্প্রতি গবেষণায় এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টাক মাথার চিকিৎসক ফ্রেন্ক গ্যাবরিন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা যান। এতে গবেষকেরা পুরুষের হরমোনের সঙ্গে করোনাভাইরাসের দ্রুত সংক্রমণের শক্তিশালী একটি সম্পর্ক পেয়েছেন। যাকে ‘গ্যাবরিন সংকেত’ হিসেবে অভিহিত করেছেন তারা।

গবেষণার প্রধান ও ব্রাউন ইউনির্ভাসিটির প্রফেসর কারলোস ওম্বেয়ার বলেন, টাক মাথার লোকেরা করোনাভাইরাসের নির্মমতায় শিকার হওয়ার সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে চীনের উহানে সবচেয়ে বেশি পুরুষ মারা গেছেন। এছাড়া যুক্তরাজ্যের পাবলিক হেলথ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে নারীর চেয়ে দ্বিগুণ পুরুষের মৃত্যু হয়েছে।

এখনো বিজ্ঞানীরা লিঙ্গ ভেদে লাইফস্টাইল, ধূমপান ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা চিহ্নিত করেছেন। পুরুষের চুল পড়ায় শুধু এন্ড্রোজেন ভূমিকা রাখে না, এটি করোনাভাইরাসের সক্ষমতা বাড়িয়ে কোষে আক্রমণ করার সম্ভাবনা বাড়ায়।

আরো পড়ুন  প্রথম করোনাভাইরাস আবিষ্কার করেছিলেন যে নারী

টাক মাথার চুল গজানো বা প্রোস্টেট ক্যান্সারের চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যান্ড্রোজেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর শঙ্কা বাড়তে পারে। প্রফেসর ওয়েম্বার বলেন, আমরা ভাবছি, কোষের ভেতরে করোনাভাইরাস ঢুকার জন্য সহজ করছে অ্যান্ড্রোজেন বা পুরুষ হরমোন।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, স্পেনের মাদ্রিদের তিনটি হাসপাতালে ৭৯ শতাংশ টাক পুরুষ রয়েছে। যারা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছিল। আমেরিকার ত্বক-বিজ্ঞান একাডেমি ১২২ রোগীর ওপর গবেষণা করেছে। তারও আগে স্পেনের হাসপাতালগুলোর ৪১ রোগী নিয়ে কাজ করা হয়েছিল। এসব গবেষণায় ৭১ শতাংশ করোনাভাইরাসের রোগীর মাথা টাক ছিল।

প্রোস্টেস ক্যান্সার ফাউন্ডেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট হাওয়ার্ড সোল সাইন্স ম্যাগাজিনকে বলেন, প্রত্যেকেই অ্যান্ড্রোজেনের সঙ্গে করোনাভাইরাসের(কোভিড-১৯) সম্পর্ক পেয়েছেন।

যুক্তরাজ্যের প্রোস্টেট ক্যান্সারের প্রধান নীতি নির্ধারক ক্যারেন স্ট্যালবাউ বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন গবেষণায় নির্দেশ করে যে, পুরুষের হরমোন ও কোভিড-১৯ এর সম্পর্ক রয়েছে।

আরো পড়ুন  করোনায় সর্বস্ব দান করে ঋণ নিয়ে দেশে ফিরলেন অস্ট্রেলিয়ান দম্পতি

সূত্র-টেলিগ্রাফ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *