শিমের বীজ

শিমের বীজ খেলেই হতে পারে মৃত্যু

এখন শীতের মৌসুম। রকমারি সবজিতে পরিপূর্ণ থাকে এই মৌসুমটি। যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারি (useful)। সবারই ধারণা সব ধরণের ফল ও সবজিই স্বাস্থ্যকর।

এই ধারণাটি একদমই ভুল। কিছু কিছু ফল ও সবজি আছে যার বিশেষ কিছু অংশ বিষাক্ত উপাদানে ভরপুর থাকে। যা মারাত্মক স্বাস্থ্য (health)

শিমের বীজ

ঝুঁকির সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যুও ঘটাতে পারে। আর এসব বিষাক্ত খাবার আমাদের রান্নাঘরেই রয়েছে। সতর্ক থাকার জন্য চলুন জেনে নেয়া যাক এমন কিছু খাবার সম্পর্কে-

শিমের বীজ
আপনাকে মারাত্মক অসুস্থ্য করে দিতে পারে শিমের বীজে। কারণ এতে থাকে ফাইটোহিমাটোগ্লুটানিন নামক বিষ। তাই শিম রান্নার আগে অন্তত ১০ মিনিট সেদ্ধ করে নিতে হবে।

আরো পড়ুন  এই রমজানে খাবার বাছাই খুবই গুরুত্বপূরণ, রোজায় সুস্থ থাকতে সেহরি-ইফতারে যা খাবেন জানুন

ক্যাস্টর অয়েল
ভেন্নার বা ক্যাস্টর তেল (caster oil)  বিভিন্ন ধরণের ক্যান্ডি, চকলেট বা অন্যান্য খাদ্যে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু জানেন কি, ভেন্নার বীজে রিচিন নামের বিষাক্ত উপাদান থাকে যা খুবই মারাত্ম’ক। ভেন্নার একটি বীজ (Seeds) খেলেই একজন প্রাপ্তবয়ষ্ক মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। আর চারটি ভেন্নার বীজ খেলে একটি ঘোড়ার মৃত্যু হতে পারে।

আপেল
আপেলের বীজে হাইড্রোজেন সায়ানাইড নামের বিষ রয়েছে। আমরা সাধারণত আপেলের বীজ খাই না। কিন্তু আপেলের বীজ যদি কোনো কারণে পেটে চলে যায় তাহলে বিপদ হতে পারে।

আলু
এমনিতে আলু খাওয়া নিরাপদ। কিন্তু আলুর পাতা ও কাণ্ডে গ্লাইকোএ্যল্কালয়েড থাকে। বাড়িতে অনেক দিন পর্যন্ত আলু রেখে দিলে এর মধ্যে গ্যাঁজ অঙ্কুর হয়ে যায়। এই গ্যাঁজ বা অঙ্কুরে গ্লাইকোএ্যল্কালয়েড থাকে যা আলোর সংস্পর্শে বৃদ্ধি পায়। এই জন্য আলু (potato) সব সময় ঠাণ্ডা ও অন্ধকার জায়গায় রাখতে হয়। সবুজাভ ও গ্যাঁজ হওয়া আলু খেলে ডায়রিয়া, মাথাব্যথা-সহ নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আরো পড়ুন  সহবাসের আগে একবার খাবেন তারপর রাতভর সহ'বাস করতে পারবেন কোন পতন ছাড়াই

কাঁচা মধু
কাঁচা মধুতে গ্রায়ানক্সিন থাকে। তাই এক টেবিল চামচ কাঁচা মধু (honey) খেলে মাথাঘোরা, দুর্বল লাগা, অত্যধিক ঘাম হওয়া, বমি বমি ভাব হওয়ার মতো নানা উপসর্গ দেখা দেয়।

টমেটো
আলুর মতোই টমেটোর পাতা ও কাণ্ডে গ্লাইকোএ্যল্কালয়েড থাকে যা হজমে সমস্যা সৃষ্টি করে। কাঁচা সবুজ টমেটোতেও (tomato)  এই একই উপাদান রয়েছে। তবে অল্প পরিমাণে খেলে কোনো সমস্যা হওয়ার ভয় নেই।

কাজুবাদাম
দুই ধরণের কাজুবাদাম পাওয়া যায়- মিষ্টি কাজুবাদাম ও তেতো কাজুবাদাম। তুলনামূলক ভাবে তেতো কাজুবাদামে প্রচুর হাইড্রোজেন (hydrogen) সায়ানাইড থাকে। সাত থেকে দশটা তেতো কাজু বাদাম কাঁচা খেলে প্রাপ্তবয়ষ্কদেরও সমস্যা হতে পারে এবং ছোটদের ক্ষেত্রে তা প্রাণনাশক হতে পারে! নিউজিল্যান্ড, আমেরিকার মতো দেশ এই তেতো কাঁচা কাজু বাদাম বিক্রি করা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *