বাড়িতে বসেই খুব সহজে শরীরের যেকোন গো’পনাঙ্গের অবাঞ্ছিত লোম দূর করুন

চুল (hair) একটি সুন্দর জিনিস, এটি আমাদের ‘মুকুট গৌরব, তবে কেবল যখন এটি মাথার ত্বকে থাকে। মুখ, হাত, পা ইত্যাদি শরীরের বিভিন্ন অংশের চুল(hair)কখনই স্বাগত নয়। এই নিবন্ধে, আমি ১০০% ঘরোয়া উপায়ে অবাঞ্ছিত শরীরের চুল (hair)অপসারণের প্রাকৃতিক প্রতিকার সম্পর্কে কথা বলব। এটি মহিলাদের জন্য বিব্রতকর সমস্যা। আপনাকে যা করতে হবে তা হ’ল আপনার রান্নাঘরের ভিতরে সন্ধান করতে হবে কারণ সেখানে এমন কিছু জাদুকরী উপাদান রয়েছে যা আপনাকে কুৎসিত অযাচিত চুল থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করতে পারে! আপনার অবাঞ্ছিত শারীরিক চুল(hair) দূর করার জন্য কয়েকটি আশ্চর্যজনক ঘরোয়া প্রতিকার এখানে দেওয়া হল।

চিনি এবং লেবুঃ
আপনাকে যা করতে হবে তা হ’ল ৮-৯ টেবিল-চামচ জলের সাথে দু’চামচ চিনি এবং লেবুর রস মিশ্রিত করা। বুদবুদগুলি না হওয়া পর্যন্ত এই মিশ্রণটি গরম করুন এবং তারপরে, এটি ঠান্ডা হতে দিন। এটি স্প্যাটুলা ব্যবহার করে আক্রান্ত অঞ্চলে প্রয়োগ করুন এবং এটি প্রায় ২০-২৫ মিনিটের জন্য রাখুন। বৃত্তাকার গতিতে ঘষে, ঠান্ডা জল দিয়ে এটি ধুয়ে ফেলুন।
ভাবছেন কীভাবে এটি কাজ করে? ঠিক আছে, চিনি একটি প্রাকৃতিক এক্সফোলাইটিং এজেন্ট এবং উষ্ণ চিনি আপনার চুলে (hair)লাগায়, ত্বকে নয়। লেবুর রস ত্বকের চুলের জন্য প্রাকৃতিক (এবং সস্তা) ব্লিচ হিসাবে কাজ।

অবাঞ্ছিত শারীরিক চুল(hair) দুর করতে চিনি, মধু এবং লেবুঃ
দুই টেবিল চামচ চিনি এবং লেবুর রস এবং এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে শুরু করুন। প্রয়োজন মতো মিশ্রণটি প্রায় তিন মিনিট গরম করুন এবং মিশ্রণটি আরও পাতলা করতে পানি দিন।
একবার পেস্ট ঠান্ডা হয়ে গেলে আক্রান্ত স্থানগুলিতে লাগিয়ে চুলের (hair)বৃদ্ধির দিকে পেস্টটি ছড়িয়ে দিন। এর পরে, একটি মোমের স্ট্রিপ বা একটি সুতির কাপড় ব্যবহার করুন এবং চুলকে বৃদ্ধির বিপরীত দিকে টানুন।
মধু ত্বককে ময়শ্চারাইজ করতে সহায়তা করে এবং তাই আপনার শুষ্ক ত্বক থাকলে এই পদ্ধতিটি অত্যন্ত ভাল কাজ দেয়।

আরো পড়ুন  চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জেনে নিন

ওটমিল ও কলাঃ
এই পদ্ধতিটি বেশ কার্যকর। একটি পাকা কলা দিয়ে দুই টেবিল চামচ ওটমিল মিশিয়ে নিন এবং আক্রান্ত স্থানগুলিতে এই পেস্টটি প্রয়োগ করুন। ১৫ মিনিটের জন্য এটি ম্যাসেজ করুন, এরপর এটি ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। ওটমিল একটি দুর্দান্ত, হাইড্রেটিং স্ক্রাব তৈরি করে এবং এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি আপনার ত্বক থেকে লালচেভাব দূর করতে সহায়তা করে। আপনার মুখের চুল(hair) মুছে ফেলা ছাড়াও এই পেস্টটি ব্যবহার করলে আপনার ত্বক উজ্জ্বল ও মসৃণ হবে।

শরীরের অবাঞ্চিত লোম দূর করতে আলু এবং মসুর ডালঃ

এক টেবিল চামচ মধু এবং লেবুর রস প্রতি পাঁচ টেবিল চামচ আলুর রসে মেশান। এদিকে মসুর ডাল (সারারাত ভিজিয়ে রেখে) পিষে নিয়ে একটি মসৃণ পেস্ট তৈরী করুন । সমস্ত উপাদান একসাথে মিশ্রিত করে আক্রান্ত স্থানে প্রায় ২০ মিনিটের জন্য মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন। এটি সম্পূর্ণ শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।
এই পেস্টটি একটি ক্রাস্ট তৈরি করে যা চুল (hair) দূর করতে সহায়তা করে। এছাড়াও, আলু চুলগুলি ব্লিচ করতে সহায়তা করে।

চিনি এবং মধুঃ
শরীরের বিভিন্ন অঞ্চলে অযাচিত চুল (hair) মুছে ফেলার জন্য, চিনি এবং মধুর চেয়ে ভাল কিছুই কাজ করে না। চিনি একটি দুর্দান্ত এক্সফোলিয়েটিং এজেন্ট হিসাবে কাজ করে। ত্বকের মৃত কোষগুলি অপসারণ করার সময় এটি অতিরিক্ত চুল দূরীভুত করে। এছাড়াও, মধু ত্বককে ভাল হাইড্রেটেড এবং ময়শ্চারাইজড রাখে। এটি ত্বকে যে কোনও সংক্রমণ বা ফুসকুড়ি হওয়ার ঝুঁকিও হ্রাস করে।
একটি পরিষ্কার পাত্রে ৩ টেবিল চামচ চিনি এবং ১ টেবিল চামচ মধু রাখুন।
চিনি সম্পূর্ণরূপে দ্রবীভূত না হওয়া পর্যন্ত এটি কয়েক সেকেন্ডের জন্য গরম করুন।
মাইক্রোওয়েভ থেকে এটি সরান, এখন ১ চা চামচ লেবুর রস যোগ করুন এবং ভালভাবে মিশ্রিত করুন।
মিশ্রণটি কিছুটা ঠান্ডা হতে দিন।
আপনার অবাঞ্ছিত চুল রয়েছে এমন জায়গাগুলিতে হালকা গরম মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন।
এরপর শীতল জলের সাহায্যে জায়গাটি পরিষ্কার করুন, আপনার ত্বক শুকনো করুন এবং হালকা ময়েশ্চারাইজার লাগান।

আরো পড়ুন  সুখবর, করোনা ভ্যাকসিন এর পরীক্ষা সফল

ডিমের সাদা অংশঃ
মুখের চুল সহ অবাঞ্ছিত শারীরিক চুল (hair) মুছে ফেলার জন্য আপনি ডিমের সাদা অংশ ব্যবহার করতে পারেন। আসলে, ডিমের সাদা অংশগুলি আপনার ত্বক থেকে অযাচিত চুল দূর করার একটি গুরুত্বপূর্ উপাদান হিসাবে কাজ করে।
ডিমের সাদা অংশ বাদ দিয়ে কুসুমটি আালাদা করুন।
এতে ১ টেবিল চামচ চিনি এবং ১ টেবিল চামচ ভুট্টা ময়দা দিন এবং ভালভাবে মেশান।
মিশ্রণটি আপনার দেহের লোমশ অংশে লাগান।
এটি ১৫ থেকে ২০ মিনিটের জন্য শুকিয়ে দিন, তারপরে এটিকে স্ক্রাব করুন।
পরিষ্কার পানি দিয়ে জায়গাটি ধুয়ে ফেলুন।
প্রক্রিয়াটি প্রয়োজন হলে পুনরাবৃত্তি করুন।
এই প্রতিকার খুব ঘন চুল (hair) উপর কাজ করে না।

কাঁচা পেঁপেঃ
কাঁচা পেঁপে আপনি ব্যবহার করতে পারেন এবং শরীরের অবাঞ্চিত লোম দূর করতে এটি একটি কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার।
কাঁচা পেঁপের এনজাইম পেপেইন চুলের (hair) ফলিকেলগুলি ভাঙার মাধ্যমে অযাচিত চুলের বৃদ্ধি বন্ধ করতে সহায়তা করে যা থেকে চুল গজায়। এটি ত্বককে মসৃণ ও উন্নত করতে পারে।
প্রথমে কাঁচা পেঁপে কেটে টুকরো টুকরো করে কেটে নিন এবং একটি ভাল পেস্টে পিষে নিন।
১ চামচ হলুদ গুঁড়ো এর সাথে পেস্টের ২ টেবিল চামচ মেশান।
আপনার অবাঞ্ছিত চুল (hair) রয়েছে এমন জায়গায় এই মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন।
এই মিশ্রণটি দিয়ে ৫ মিনিটের জন্য ত্বকে ম্যাসাজ করুন।
এটি ১০ ​​মিনিটের জন্য রেখে দিন, তারপরে এটি জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
অবাঞ্ছিত শারীরিক চুল (hair) অপসারণ করতে সপ্তাহে অন্তত দু’বার এই প্রতিকারটি পুনরাবৃত্তি করুন।

আরো পড়ুন  মাত্র ২ দিনে বুকের কফ দূর করার সহজ পদ্ধতি শিখে নিন

ময়দা আটাঃ
আপনার মুখ বা শরীরের অন্যান্য অঞ্চল থেকে শারীরিক অবাঞ্ছিত চুল মুছে ফেলতেও ময়দা আটা ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি একটি চমৎকার এক্সফোলিয়েটিং এজেন্ট হিসাবে কাজ করে।
একটি পাত্রে ১ টেবিল চামচ ময়দা এবং ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো নিন।
সামান্য দুধ বা জলে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন।
আপনার ওপরের ঠোঁট বা অবাঞ্ছিত চুলের (hair) সাথে অন্যান্য অংশে পেস্টটি প্রয়োগ করুন এবং এটি শুকানোর জন্য অপেক্ষা করুন।
চুলের (hair) বৃদ্ধির দিকের বিরুদ্ধে আঙ্গুলগুলি ব্যবহার করে পেস্টটি স্ক্রাব করুন।
অবশেষে পরিষ্কার ঠান্ডা পানি দিয়ে আপনার ত্বক ধুয়ে ফেলুন।
এটি নিয়মিত সপ্তাহে দু’বার করুন।

ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডঃ
হরমোনের পরিবর্তনের কারণে যাদের দেহে অতিরিক্ত চুল (hair) থাকে তাদের অবশ্যই ডায়েটে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।
ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড হরমোন তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, তাই এগুলি ভারসাম্য বজায় রাখতে অত্যন্ত উপকারী। এছাড়াও, তাদের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডগুলি আপনার স্বাস্থ্যের উপর গভীর প্রভাব ফেলে।
ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের কয়েকটি ভাল উৎস হ’ল তৈলাক্ত মাছ, চিয়া বীজ, আখরোট এবং জলপাই তেল।
আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরে ওমেগা -৩ পরিপূরক গ্রহণ করতে পারেন। সাধারণ ডোজ প্রতিদিন ৫০০ মিলিগ্রাম।
আপনি যদি উপরিউক্ত টিপস গুলো নিয়মিত ভাবে করতে পারেন তাহলে অবাঞ্ছিত শারীরিক চুল (hair) দূর করা অবশ্যই সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *