Home / লাইফস্টাইল / আবর্জনার স্তূপ থেকে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি তার সবজি বিক্রেতা বাবাকে এত বড় প্রতিদান দিল

আবর্জনার স্তূপ থেকে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি তার সবজি বিক্রেতা বাবাকে এত বড় প্রতিদান দিল

মানুষের জীবন (life)কখনো সহজ ভাবে চলেনা। জীবনে ওঠাপড়া লেগেই থাকে। জীবনে (life)কখনো ভালো কিছু ঘটলে তার রেশ কাটতে না কাটতেই আবার জীবনে (life)অন্ধকার নেমে আসে। এরকম ওঠা পড়া নিয়েই মানুষকে চলতে হয়। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে আমদের সকলের পক্ষে বলা মুশকিল যে ২৫ বছর পর কি হতে চলেছে। আপনি নিজের ইচ্ছা মত নিজের জীবনকে সাজিয়ে তুলতেও পারবেন না।

তার থেকে বরং ভালো হবে জীবনকে (life) নিজের মত করে চলতে দেওয়া। জীবন (life) কখন কোন দিকে বাঁক নেবে আপনার পক্ষে তা আগে থেকে বোঝা খুব কঠিন। তাই জীবন যেদিকে যেতে চায় সেদিকেই যেতে দিন। এরকমই হঠাত করে পালটে যাওয়া এক জীবনের (life)কথা আজ আপনাদের বলবো।

ঘটনাটি আসাম জেলার তিনশুঁখিয়া গ্রামের। ‘সবিরান’ নামে একজনের জীবনের মোড় ঘুরে যাওয়ার কথা বলবো আপনাদের। সে ছিল আসামের দরিদ্র আধিবাসীদের মধ্যে একজন। তার পেশা ছিল সবজি বিক্রি করা। সেই সবজি বিক্রির টাকায় চলে যেত তার ছোট সংসার।

একদিন তার সঙ্গে ঘটে গেল এক অদ্ভুত ঘটনা। সেখান থেকেই পুরো ঘটনার সূত্রপাত। একদিন সবিরান প্রতিদিনের মত রাস্তায় ফল বিক্রি করছিলো, সেই সময় তার চোখে পড়ে রাস্তার ধারে আবর্জনার স্তূপের মধ্যে কিছু একটা পড়ে আছে। আর সেই জায়গা থেকে শব্দ হচ্ছে।

সবিরান দৌড়ে গিয়ে দেখতে পান যে সেখানে একটি শিশু কন্যা পড়ে আছে। সবিরান গরিব হলেও সে ভালো মানসিকতার মানুষ। তাই সে সঙ্গে সঙ্গে বাচ্ছাটিকে সেখান থেকে তুলে নিজের বাড়ি নিয়ে যায় এবং তার প্রান রক্ষা করে।

সে মেয়েটির (girl) নাম রাখে জ্যোতি। সবিরান তখন ৩০ বছর বয়সি এক অবিবাহিত পুরুষ। তার সেই বাচ্ছাটিকে লালন পালন করতে কোন অসুবিধাই হয়নি। সে মেয়েটিকে (girl) নিজের মেয়ের মতই বড় করে তোলে। শুধু তাই নয় তাকে উপযুক্ত শিক্ষা দিয়ে শিক্ষিত করে।

আরো পড়ুন  শাড়ির সাথে হিজাব নেয়ার ৬টি স্টাইল শিখে রাখুন

বর্তমানে সেই কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি (girl) বড় হয়ে একজন ইনকাম ট্যাক্স অ্যাসিসটেন্ট কমিশনার হয়েছেন। সে বহু জায়গায় তুলে ধরেছে সবিরানের অবদান। সব জায়গায় বলেছে সবিরান তার জন্য কি কি করেছে। জ্যোতি সবিরানকে তার বাবা বলেই পরিচয় দেয় সব জায়গায়। তাই সবিরানের মত এক দৃঢ়চেতা উদার মনের ভালো মানুষকে প্রনাম জানাতে ইচ্ছা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *