যে সব কারণে রোজা ভঙ্গ হয়না জেনে রাখুন

রোযা বা রোজা (ফার্সি روزہ রুজ়ে), সাউম (আরবি صوم স্বাউম্‌), বা সিয়াম ইসলাম ধর্মের পাঁচটি মূল ভিত্তির তৃতীয়। সুবহে সাদেক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল প্রকার পানাহার এবং সেই সাথে যাবতীয় ভোগ-বিলাস থেকেও বিরত থাকার নাম রোযা। ইসলামী বিধান অনুসারে, প্রতিটি সবল মুসলমানের জন্য রমযান মাসের প্রতি দিন রোজা রাখা ফরজ (فرض ফ়ার্দ্ব্‌) বা অবশ্য পালনীয়।

ভুলবশত পানাহার। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন:—
من نسي و هو صائم فأكل أو شرب فليتم صومه فأنما أطعمه الله وسقاه. متفق عليه
যদি কোন ব্যক্তি রোজা অবস্থায় ভুলবশত পানাহার করে ফেলে সে যেন তার রোজা পূর্ণ করে, কেননা আল্লাহই তাকে পানাহার করিয়েছেন।

আরো পড়ুন  যা খেলে ৭০ বছরেও বুড়া হবেন না, ১০ নাম্বারটা সবসময় খাবেনযা খেলে জীবনেও বুড়া হবেন না

অনিচ্ছাকৃত বমি করা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন:—
من ذرعه القيء فليس عليه شيء.
যার অনিচ্ছাকৃত বমি হয়েছে তার রোজা কাজা করার প্রয়োজন নেই। মুসলিম

• রোজা অবস্থায় স্বপ্নদোষ হলে।

• রোগের কারণে উত্তেজনা ব্যতীত বীর্য নির্গত হলে।

স্ত্রী চুম্বন অথবা আলিঙ্গন করার কারণে রোজা ভঙ্গ হবে না।

আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রোজা অবস্থায় তাকে চুম্বন করতেন। বোখারি,মুসলিম
কিন্তু যে ব্যক্তি চুম্বন বা আলিঙ্গনের কারণে উত্তেজিত হয়ে নিজেকে সংযত রাখতে পারবে না, তার জন্য স্ত্রী চুম্বন ও আলিঙ্গন করা মাকরূহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *