ত্বকের কালো দাগ থেকে মুক্তি মিলানোর সহজ উপায় জেনে রাখুন

নানা কারণে আমাদের ত্বকে (skin) অনেক সময় কালো ছোপ বা দাগ দেখা দেয়। যার ফলে দেখতে খুব খারপ লাগে। বাজার চলতি প্রোডাক্ট ব্যবহার করেও আশানুরূপ ফল পাওয়া যায় না।পলিউসান ত্বকের (skinসবচেয়ে বড় দুশমান। ত্বক বিশেষ করে মুখে নানা রকম দাগ দেখতে খারপ লাগে। চিন্তা নেই। কয়েকটা ঘরোয়া টোটকা আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। আপনারা আপনাদের সমস্যা অনুযায়ী সেগুলো ব্যবহার করতে পারবেন।

১. পাতিলেবু

লেবু শরীরের সাথে সাথে ত্বকের যত্ন (skin care)  নিতে সাহায্য করে। ত্বকের যেকোনো সমস্যায় লেবু ব্যবহার করতে পারেন। খেয়াল করে দেখবেন শান বার্ন থেকে ব্রণও যেকোনো সমস্যার ঘরোয়া উপায়ে লেবুর কোন না কোন ভূমিকা থাকে। মুখে হওয়া কালো দাগের (black spot) থেকে মুক্তিপেতে পাতিলেবুর চেয়ে ভালো কোন উপায় হয় না। কি কি ভাবে পাতিলেবু ব্যবহার করবেন, জেনে নিন। চন্দনগুঁড়ো, পাতিলেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে ১০মিনিট ফ্রিজে রাখুন।তারপর মুখ ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে মুছে এই মিশ্রণটি লাগান ভালো করে। হালকা শুকিয়ে এলে ৫মিনিট মুখে ম্যাসাজ করুন। তারপর আরও ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩দিন একবার করে করলে মুখের দাগ দূর হয়ে যাবে সহজে।

২. হলুদঃ হলুদ ত্বকের জন্য উপকারী আমরা সবাই জানি। যেকোনো দাগ দূর করতে হলুদ ব্যবহার করা যেতে পারে। ত্বকের সতেজতা বজায় রাখতেও হলুদের ব্যবহার হতে পারে। কাঁচা হলুদ ভালো করে বেটে পেস্ট বানিয়ে নিন। এবার হলুদের পেস্টে অল্প নারকোল তেল মিশিয়ে মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে হালকা ম্যাসাজ করুন। ৫ মিনিট ম্যাসাজ করে শুকনো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে হালকা গরমজলে মুখ ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার করুন। একমাসের মধ্য দেখতে পাবেন কালো দাগ (black spot) দূর হয়ে গেছে। হলুদের পেস্টের সাথে অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্বকের কালো ছোপ, ব্রণর থেকে হওয়া দাগ দূর হয়ে যায়।

আরো পড়ুন  শীতকালে সৌন্দর্য ধরে রাখতে যে ৭টি ভুল একেবারেই করবেন না

৩. মুলতানি মাটিঃ মুলতানি মাটি ত্বকের যত্ন নিতে সহায়তা করে। মুলতানি মাটি ব্যবহার করলের ত্বকের জেল্লা বেড়ে যায়। পাশাপাশি ত্বকের (skin) কালো ছোপ অনায়াসে দূর হয়ে যায়। মুলতানি মাটি নিন পরিমান মত। এবার তাতে ২চা চামচ গোলাপজল ও এক চা চামচ মধু নিন। মিশ্রণটি রেডি। ত্বকে লাগিয়ে ৩০ মিনিট রাখুন। শুকিয়ে গেলে হালকা গরমজলে মুখ ধুয়ে নিন। নিয়মিত একমাস এই প্যাক ব্যবহার করলে দেখবেন আপনার ত্বকের কালো ছোপ ভ্যানিস।

৪. ডিমঃ ডিম (egg)  যত্নের পাশাপাশি ত্বকের জন্য, বিশেষ করে কালো দাগ (black spot)দূর করতে সাহায্য করে। ডিম (egg)  মুখে লাগাতে একটু কষ্ট হবে গন্ধর জন্য। কিন্তু ত্বকের যত্ন (skin care)  নিতে এটুকু কষ্ট সহ্য করা জেতেই পারে। ডিমের (egg)  সাদা অংশ নিয়ে তাতে একটি গোটা পাতিলেবুর রস মিশিয়ে নিন। ভালো করে মিক্স করুন। এবার মুখে বা শরীরের যেখানে যেখানে কালো স্পট রয়েছে তাতে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। সপ্তাহে একবার করে ট্রাই করে দেখুন। দাগ সহজে দূর হয়ে যাবে।

৫. দুধঃ দুধের সাহায্য ত্বকের (skin) বা শরীরের কালো দাগ (black spot) সহজে দূর হয়ে যায়। পাশাপাশি ত্বক (skin) সতেজ ও উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। প্রত্যেকদিন রাতে ঘুমানোর আগে অল্প টমেটোর পেস্টের সাথে পরিমান অনুযায়ী দুধ মিশিয়ে ত্বকে (skin) লাগিয়ে ঘুমিয়ে যান। সকালে উঠে ঠাণ্ডা জলে মুখ ধুয়ে নিন। মাসে ৫ থেকে ৬ বার করুন। দাগ দূর হওয়ার সাথে সাথে ত্বকের জেল্লা ফিরে আসবে।

আরো পড়ুন  মুখ ও গলার কালো দাগ দূর করার ২টি কার্যকরী ঘরোয়া উপায়

বিবাহিত নারীদের পটাতে পুরুষের মারণাস্ত্র প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য

আমাদের চারপাশে কিছু কিছু মানুষ (man) আছে যারা বেশ বাকপটু। অফিসের (office) কলিগ, পাশের বাসার ভাবি কিংবা বন্ধুর স্ত্রীদের প্রশংসায় মুগ্ধ করে তোলেন। মনে হতে পারে এগুলো শুধুই প্রশংসাবাক্য।কিন্তু এর গভীরে লুকিয়ে থাকে অসৎ উদ্দেশ্য। কী ধরনের প্রশংসাবাক্য এরা প্রয়োগ করে তার কিছু নমুন ফেসবুকে দিয়েছেন তাসফিয়া নামে একজন। তিনি লিখেছেন-

চরিত্রহীন কিছু পুরুষ (male) কীভাবে বিবাহিতা নারীদের পটিয়ে ফাঁদে ফেলেন। পড়ুন

১. ভাবি, আপনি দুই বাচ্চার মা! আপনাকে দেখলে কেউ বিশ্বাসই করবে না। দেখে মনে হয়, মাত্র ইন্টারপাস করছেন!সিরিয়াসলি! – এ কথা শুনে ভাবি তো আহলাদে আট দু’গুণে ষোলখানা। একটু লজ্জা পেয়ে ভাবি বলেন, সেই সময় কি আর আছে, বয়স হয়েছে না! ২. আপু, একটা কথা বলবো অনেকদিন থেকে ভাবছি! কিন্তু হ্যাজিটেশন করে বলা হচ্ছে না। আপনি এমনিতেই সুন্দর। কিন্তু নাকের পাশের তিলটা আপনাকে একদম পরী বানিয়ে দিছে। এত্ত সুন্দর। জাস্ট অসাধারণ লাগে! – আপু তো শুনে একদম কাত। বলেন, ‘অ্যাঁ সত্যি বলছেন। আপনি আসলে সমাঝদার লোক!

৩. মন খারাপ কেন ভাবি? ভাইয়া ঝগড়া-টগড়া করলো নাকি?… আপনার মতো এরকম একটা মানুষের (man)  সাথেও ঝগড়া করা যায়? বিশ্বাসই হচ্ছে না! ভাবি দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলেন, ‘বইলেন না, আপনার ভাই কোনোদিন বোঝার চেষ্টাই করলো না। ৪. একটা কথা বলি, কিছু মনে করবেন না তো? আপনার কণ্ঠটা এত্ত সুন্দর! কোনো প্রিয় গান বারবার শুনলেও যেমন বিরক্তি লাগে না, আপনার কথাবার্তার স্টাইলও (style) এরকম। টানা ২৪ ঘণ্টা শুনলেও বোরিং লাগবে না! – একথা শুনে সুন্দর কণ্ঠওয়ালী তো আবেগে গদ গদ। বলেন, অ্যাঁ সত্যি বলছেন ভাই? এই শুনছো ( স্বামীকে উদ্দেশ্য করে), দেখো কি বলছে। তুমি বুঝলা না আমাকে।

আরো পড়ুন  ঝলমলে নিখুঁত ফর্সা ত্বক পেতে রাতে ২টি ফেসিয়াল মাস্ক শিখুন

৫. আপনি যা ইচ্ছা মনে করতে পারেন, আজ থেকে আপনাকে আর আন্টি ডাকবো না, বলে দিচ্ছি। হুঁ! দেখলে মনে হয় আবার বিয়ে দেয়া যাবে, আর আপনাকে ডাকবো আন্টি? নাহ, আর নাহ! আন্টিতো স্কুলপড়ুয়া মেয়ে হয়ে যান। বলেন, ‘যা , আমারতো লজ্জা লাগছে। এভাবে কেউতো কখনো বলেনি, তাই! ৬. একটা কথা বলবো? নীল শাড়িতে আপনাকে দারুণ মানাইছে!…না না, তেল দিচ্ছি না, সত্যি বলছি! সত্যি অনেকটা কোয়েল মল্লিকের মতো লাগে আপনাকে! -শুনে একেবারে ভিজে গেলেন। হাসতে হাসতে বলেন, ‘আপনার মুখে ফুল চন্দন পড়ুক। ৭. জন্মদিনে কী কী করলেন আপনারা?….কি? ভাইয়ার অফিস? (office) ….কি যে বলেন!…. আমি এরকম একটা বউ পেলে জন্মদিন উপলক্ষ্যে এক সপ্তাহের ছুটি নিতাম!…হাইসেন না, সিরিয়াসলি! -শুনে তো থ। চোখ কপালে উঠে গেল। ধীরে ধীরে দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বললেন, ‘আমার ভাগ্যটাই খারাপ। আপনার মতন রোমান্টিক মানুষ (man) পেলাম না!

কিছু কিছু পুরুষ (male) আছে, যারা এভাবে কলিগ, ভাবি, বন্ধুর বউদের প্রশংসাবাক্যে প্রাণমন ভিজিয়ে ফেলে। আপাতদৃষ্টিতে এগুলো ‘জাস্ট প্রশংসাবাক্য’। কিন্তু এর গভীরে যে কত বড় লাম্পট্য আর অসৎ কামনা লুকিয়ে আছে, খেয়াল না করলে বোঝার উপায় নেই।

মূলত এখান থেকেই শুরু হতে নষ্টামির পথে অনন্ত যাত্রা! আর যারা এগুলো করে, এরা কিন্তু ফাঁদে ফেলবার জন্যেই করে! এদের স্বভাবই হলো ফ্লার্ট করে নিজের বশে আনা! খুব স্মার্ট সুদর্শন পুরুষ (male) দেখলে কিছু কিছু ক্ষেত্রে নারীরাও এরকম ফ্লার্ট করে। এরা এসব পুরুষের (male) মুখে প্রশংসাবাক্য শোনার জন্যই উদগ্রিব হয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *