মাত্র ৭ দিনে প্রকৃতিক ভাবে ঘরে বসে উজ্জ্বল ও আকর্ষণীয় ত্বক পেতে আজই জেনে নিন (অপ্রকাশ্য অথ্য, নিয়ম দেওয়া হল)

উজ্জ্বল এবং মসৃন ত্বক (skin) নিয়ে সবারই একটি বাড়তি আগ্রহ থাকে। নিজের ত্বককে(skin) নিজরে সাথে সমঞ্জসতা করার জন্য ডার্ক সার্কেল, পিগমেন্টেশন, শুষ্ক ও নির্জীব ত্বকের প্যাচ, ব্ল্যাকহেড এর যুদ্ধ করতে হয়।

বর্তমান সময়ে হয়তো আপনাকে এই সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছেনা। কিন্তু আপনি যদি আপনার ত্বকের(skin) প্রতি অমনোযোগি হন তাহলে এধরনের সমস্যাগুলো ত্বকে বাসা বাধঁতে খুব বেশি সময় নিবেনা।

আপনি শুনে খুশি হবে যে আমি আপনাদের জন্য একটি গাইড লাইন নিয়ে এসেছি যা ৭ দিনের মধ্যে আপনাকে একটি সুন্দর উজ্জ্বল ত্বক (skin) উপহার দিবে।

১ সাপ্তাহের মধ্যে কিভাবে উজ্জ্বল ত্বক পেতে পারেন

প্রথম দিন

আজ থেকে, CTN পদ্ধতিতে আপনার রুটিন শুরু করুন। যদিও বেশিরভাগ মানুষ মুখ পরিষ্কার করার জন্য টোনিং এবং মসজারাইজিং (Moisturizing) নিয়মিত ব্যবহার করে থাকে। যদি আপনি ব্যবহার না করে থাকেন তবে আজ থেকে শুরু করুন। শুরু করবেন, দেখবেন আর থামছেন না! নিয়মিত করছেন।

আপনার মুখ সব সময় ধুলা-বালি থেকে তৈলাক্ততা শোষণ করছে এবং আপনার মুখে যে তৈলাক্ত আর মরা চামড়া আছে তা আপনার মুখে জমা হচ্ছে। ক্লিনজার (cleanser) ব্যবহারের ফলে লোমগুলো অনাবৃত হয় এবং ব্রণের (acne) মত সমস্যাগুলো দূর হয়। এই ক্লিনজার হতে হবে আপনার ত্বকের (skin) উপর নির্ভরশীল। যেটি আপনার ত্বকে মানানসই। ক্লিনজার (cleanser) ব্যবহারের পর টোনার (toners) ব্যবহার করলে আপনার ত্বকের বাড়তি তেল ও ধূলা-বালি দূর হবে। প্রাকৃতিক টোনার (toners) ব্যবহার করা সব চেয়ে ভাল। প্রাকৃতিক টোনার এর মধ্যে গোলাপ জল, গ্রীন টী (green tea) এবং সাদা ভিনেগার (white vinegar) খুবই উপকারী। একটি ভাল ময়েশ্চারাইজার (Moisturizer) ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার রুটিন শেষ করুন।
এবার আপনার মুখে উজ্জ্বল ফেইস প্যাক ব্যবহার করুন। আপনি চাইলে আপনার প্যাক আপনি নিজেই বানিয়ে নিতে পারেন। যেমন- পেঁপে, লেবু, মধু, দুধ এবং টমেটু যা আমাদের রান্না ঘরে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়।
ঘুমানোর আগে অবশ্যই আপনার মেকাপ তুলে ফেলা উচিত। আপনার ত্বকের(skin) রাতে শ্বাস-প্রাশ্বাস নেয়া দরকার যেটি মেকাপ থাকলে সম্ভব হয়না। মেকাপ তুলে ফেলার সব চেয়ে ভাল উপায় হচ্ছে আপনি বেবি অয়েলএর কয়েক ফুটা আপনার মুখে লাগান এবং কয়েক মিনিট ম্যাসেজ করুন। যখন মেকাপ লোস হয়ে আসবে তখন আপনি তুলা, তুয়ালে বা টিস্যু দ্বারা মুছে ফেলুন।
আপনার দিন CTM পদ্ধতির মাধ্যমে আবার শেষ করুন। নিয়মিত একটি ভাল ময়েশ্চারাইজার এবং ভাল আই সেরাম (eye serum) এর মাধ্যমে আপনার দিন শেষ করুন। যদি আপনার ত্বক শুষ্ক হয় তাহলে আপনার শাটিন কাপুড়ের বালিশের কাভার ব্যবহার করুন। সব সময় চেষ্টা করবেন চিৎ হয়ে ঘুমাতে যাতে করে আপনার মুখ বালিশের সাথে না লাগে। এতে করে আপনার মুখের তৈলাক্ততা দূর করতে সাহায্য করবে।
দ্বিতীয় দিন

আরো পড়ুন  আপনার ব্রণ, বাড়ছে যেসব খাবার খাওয়ার জন্য

২য় দিন আপনি অবশ্যই ফোকাস করা উচিত আপনার ত্বকের(skin) স্বাস্থ্য উন্নতি দিকা। তা নির্ভর করে আপনার খাবারের উপর। আপনার ত্বক তখনই ভাল কাজ করবে যখন সে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর খাবার পাবে। যখন বাহ্যিক যত্ন এতটা ভালভাবে নিচ্ছেন তখন অভ্যন্তরীণটা নয় কেন? ভাল খাবার আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে।

সকালের ক্লিনজ টোন ময়েশ্চারাইজ (cleanse-tone-moisturize) রুটিন ব্যবহার করুন ফলের প্যাক এর মাধ্যমে। ফলের প্যাক খুব সহজেই বানানো যায় এবং প্রয়োগ করা যায়। আপনি চাইলে এই উপাদানগুলো নিয়েই ব্যবহার করতে পারেন। যেমন আপনার ত্বক (skin) যদি শুষ্ক হয় তাহলে কলার প্যাক, আর যদি তৈলাক্ত হয় তাহলে স্ট্রবেরির (strawberries) প্যাক। এটি সব চেয়ে ভাল উপায় যেটি কেমিক্যাল ছাড়ায় আপনার ত্বককে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করবে।
আপনার শরীরে পর্যাপ্ত সুস্থতার জন্য বেশি করে পানি এবং সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন। এটি আপনার মুখের যে তৈলাক্ততা তৈরি হয় তা নিয়ন্ত্রয়ণ করে এবং আপনার লোমকুপ শক্ত করতে সাহায্য করে।

আপনার মেকআপ দূর করুন এবং CTM পদ্ধতিতে দিন ও রাতের ত্বকের (skin) যত্নের রুটিনের মাধ্যমে আপনার দিন শেষ করুন।
তৃতীয় দিন

৩য় দিন আপনার মুখের মৃত / মরা চামড়া তুলে ফেলুন। এতে করে আপনার মুখ আরো নরম তুলতুলে এবং মুখে উজ্জ্বলতা বেড়ে যাবে। এটি অন্যান্য চিকিৎসার চেয়ে উন্নতর যা আপনার ত্বক (skin) পূর্বের চেয়ে ঝকঝকে তকতকে ভাব চলে আসবে।

আরো পড়ুন  ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরে পাবার ৪টি গোপন কৌশল

আপনার মুখের চামড়া ধোয়ে ফেলুন বা একটি ফেস স্পঞ্জ (face sponge) দ্বারা আপনার মুখ পরিষ্কার করুন। মৃত চামড়া ঘসে ত্বকের ভিতর লুকিয়ে থাকা সুস্থ ত্বক তুলে আনুন।
আপনার মুখের আশঁ শুকিয়ে যাওয়ার পর টোন এবং ময়শ্চারাইজ ব্যবহার করুন যার ফলে আপনার নতুন স্তরটি সুরক্ষিত থাকবে। এবার আপনি আপনার মুখে একটি ফেইস মাস্ক ব্যবহার করুন যাতে করে আপনার ত্বক(skin) আরো বেশি পুষ্টি ধারন করতে পারবে।
যখন রোদ্রময় দিনে বাইরে বের হবেন তখন সানস্ক্রিন (sunscreen) ব্যবহার করতে ভুলবেন না। এটি আপনার ত্বককে ক্ষতিকারক UV থেকে রক্ষা করবে।
সন্ধ্যায়, আপনার মুখ পরিষ্কার করার পরে একটি মুখের প্যাক প্রয়োগ করে আপনার CTM পদ্ধতি পরিবর্তন করুন। আপনি যদি প্যাক দিয়ে মুখ পরিষ্কার করা বন্ধ করেন, সেক্ষেত্রে আপনি টোনিং এবং ময়শ্চারাইজ ব্যবহার করুন।
চতুর্থ দিন

চতুর্থ দিনে, আপনি আপনার ত্বকের(skin) উন্নতি দৃশ্যমান ফলালফ দেখতে পাবেন এবং আপনার পুরো মুখের স্বাস্থ্যের বেপক পরিবর্ত ঘটবে। যাই হোক, তার মানে এই নয় যে আপনি আপনার রুটিন থেকে অবসর নিবেন।

আপনি আপনার নিয়মিত ক্লিনজার (cleanser) দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন এবং হালকা গরম ভাব দিন। এটি আপনার মুখের ছিদ্রগুলো উনমুক্ত করবে এবং ত্বকের(skin) গভির থেকে পরিস্কার করতে সাহায্য করবে। ১০ মিনিট গরম ভাব দেয়ার পর আপনি আপনার মুখে মুলতানি মাটি প্রয়োগ করুন যা আপনার মুখের ময়লা তুলে আনতে সাহায্য করবে। অন্যভাবে আপনি যেটি করতে পারেন তা হল, আপনি মধু এবং ওটমিল মিশ্রণ করে মুখে লাগাতে পারেন। একবার এটি হয়ে গেলে, মাস্ক তুলে ফেলুন এবং একটি তুলার বলে গোলাপ জল নিয়ে মুখে মেখে তার পর মুখে টোনার ব্যবহার করতে হবে। এটি আপনার মুখের গর্তগুলো ভরাট করতে সাহায্য করবে।
রাতে ত্বকের যত্ন ভালভাবে নিতে হবে যাতে সকালে আপনার ত্বকের(skin) উজ্জ্বলতা বাড়ে।
পঞ্চম দিন

আরো পড়ুন  ত্বক পরিষ্কারের নিখুঁত উপায় ডাবল ক্লিনজিং করার পদ্ধতি

অ্যালোভেরা জেল ম্যাসেজ করুন আপনার মুখে CTM পদ্ধতি অনুসরণের মাধ্যমে। এটি আপনার মুখের রক্ত সঞ্চালন করতে সাহায্য করে এবং আপনার ত্বকে (skin) উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে দেয়। এটি ত্বকের টক্সিন গুলোকে ফুলাতে সাহায্য করে। যদি আপনার চোখের নিচে কালো দাগ থাকে, তাহলে সবসময় চোখের নিচে এটি ব্যবহার করুন। এটি আপনার বিরর্ণতা দূর করে মুখের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে দিবে।

ম্যাসেজ করার পর, আপনার নিয়মিত ময়শ্চারাইজ করুন কিংবা ডে ক্রিম (day cream) ব্যবহার করুন। এটি একটি উন্নতমানের SPF (Sun Protection Factor) সুতারাং আপনাকে আলাদা করে সানস্ক্রিন (sunscreen) লাগাতে হবেনা।
সন্ধ্যায়, CTM এর রুটিন অনুসারে মুখে মুলতানি মাটির প্যাক লাগান এতে আপনার মুখ আরো মসৃণ এবং উজ্জ্বলতা হয়ে উঠবে।
ষষ্ঠ দিন

এখন আবার স্ক্রাব করার সময়, আপনাকে অবশ্যই সাপ্তাহে ২ বার স্ক্রাব করতে হবে ত্বকের(skin) উজ্জ্বলতা রাখার জন্য। ৩য় দিনের ধাপ টি অনুসরণ করুন, সবশেষে টোনিং এবং ময়শ্চারাইজিং ব্যবহার করুন।
নিয়মিত পানি এবং তরল গ্রহণের করুন যেমন সুপ এবং জুস এটা খুবই প্রয়োজন সুস্থ শরীর এবং ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য।
সপ্তম দিন

এখন সময় আপনার ত্বকে আরেকটি ফলের ফেশিয়াল (fruit facial) করার। CTM পদ্ধতিতে অনুসরণ করা দরকার সকালে এবং সন্ধ্যায়ও।
আপনার ত্বকের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য আপনাকে পানি বা স্বাস্থ্যকর পানীয় পান করতে হবে।
এই নির্দেশাবলী অনুসরণ করে আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা এবং ত্বকের(skin) স্বাস্থ্যের উন্নতি প্রথম দিন থেকে লক্ষ্য করতে পারবেন। এক সপ্তাহ পরে আপনার মুখ হয়ে উঠবে নরম, দীপ্তিশীল, পরিষ্কার এবং আরো সুস্পষ্ট হয়ে উঠবে এবং আপনার ত্বক সেরা ত্বকের একটি হয়ে উঠবে। এর মানে এই নয় যে আপনি আপনার ত্বকের যত্ন নেওয়া বন্ধ করে দিবেন।

প্রতিদিন CTM পদ্ধতি অনুসরণ করুন। সাপ্তাহে ২ বার ত্বকে(skin) স্কাব করুন এবং প্রাকৃতিক ফেইস প্যাক ব্যবহার করুন সপ্তাহে কয়েক বার, যা আপনার ত্বকের স্বাস্থ্য এবং উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *