চুল পড়া কমাতে পেয়ারা পাতার জাদুকরী ব্যবহার

চুল পড়া (hair fall) ছেলেমেয়ে উভয়েরই রোজকার সমস্যা(problem) হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা প্রতিনিয়ত এই সমস্যাই ভুগছি। চুল পড়া (hair fall) রোধে দামি দামি ওষুধ ও প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু কিছুতেও কিছু হয় না। তবে চুল পড়ার (hair fall) বিভিন্ন কারণ রয়েছে। কারণ ভেদেই মূলত চুল পড়া সমস্যার (problem)  সমাধান করাটাই ভালো। তবে পেয়ারা পাতার ব্যবহারে আপনি পেতে পারেন জাদুকরী সমাধান।

পেয়ারা পাতায় অ্যান্টি ইনফ্লামেটরি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদান রয়েছে যা মাথার তালু সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এমনকি এটি মাথার খুশকি হওয়া রোধ করে। ভিটামিন (vitamin) সি মাথার তালুতে ফলিক অ্যাসিডের ভারসাম্য বজায় রেখে নতুন চুল গজাতে (new hair growth) সাহায্য করে।

যা যা লাগবে:

১। এক মুঠো পেয়ারা পাতা

২। ১ লিটার পানি

যেভাবে তৈরি করবেন:

১। একটি পাত্রে পানি জ্বাল দিতে দিন। পানি ফুটে আসা পর্যন্ত অপেক্ষা (wait) করুন।

২। ফুটে এলে এতে পেয়ারা পাতা দিয়ে দিন।

৩। পেয়ারা পাতা দিয়ে ২০ মিনিট জ্বাল দিন।

আরো পড়ুন  চুল পড়া, খুশকি দূর ও চুল ভালো রাখতে আদা ব্যবহার জেনে নিন

৪। ২০ মিনিট পর নামিয়ে ফেলুন।

যেভাবে ব্যবহার করবেন:

১। প্রথমে চুল ভাল করে শ্যাম্পু করে নিন; তবে কন্ডিশনার (conditioner) ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

২। চুল কিছুটা শুকিয়ে এলে চুল বেণী করে তারপর পেয়ারা পাতার পানি ঢালুন।

৩। পানিটি মাথার তালুতে কমপক্ষে ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন এবং ২ ঘণ্টা রেখে তারপর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
কতদিন পর পর ব্যবহার করবেন:

চুল পড়া বন্ধ করবে যদি চুল পড়া (hair fall) সমস্যা (problem) অনেক বেশি থাকে তবে সপ্তাহে তিনবার ব্যবহার করুন এটি চুল পড়া (hair fall) বন্ধ করবে । আর যদি চুল শাইনি সিল্কি করে তুলতে চান তবে সপ্তাহে দুইবার এটি ব্যবহার করুন।
আপু স্বামীর কাছ থেকে মজা পাইনা তাই নিজে নিজেই….
আমার বিয়ে হয়েছে ২ বছর হতে চলল। আমার হ্যাজবেন্ডও খুব ভাল। বিয়ের আগে থেকেই আমার ফিঙারিং করার অভ্যাস ছিল। এমনো হত যে আমি দিনে ৪/৫ বার ও করতাম। বিয়ের পর থেকেও আমার ওই অভ্যাস টা রয়ে গেছে। নেটে বিভিন্ন বাজে story পরে কিংবা এক্স দেখে ফিঙারিং করি। এখন সমস্যা(problem) টা হল ওই অভ্যাসটার কারনে এখন আমার শারিরিক মিলনের (physical relation) প্রতি আগ্রহ কমে গেছে। শারিরিক মিলনের (physical relation)সময় আমার আর ভাল লাগেনা। যতটা সুখ আমি ফিঙারিং করে পাই মিলনে তা পাইনা। মাঝে মাঝে বিরক্ত লাগে।

আরো পড়ুন  লম্বা ও ঘন চুল পাবার ৪টি ঘরোয়া পদ্ধতি জেনে নিন

আপু আমি আর সহ্য করতে পারছি না, মাঝে মধ্যে মনে হয় নিজেকে শেষ করে দেই, কিন্তু পরিবারের সম্মানের দিকে তাকিয়ে সেটা পারিনা। আমিতো চেয়েছিলাম অন্য মেয়েদের মতো একটি happy জীবন কিন্তু আমার কপালে এমন হলো কেন বলতে পারেন।
এমনো হয় মিলন শেষে একা একা ফিঙারিং করে তারপর ঘুমাই। এভাবে চলতে থাকলে পরবর্তীতে অনেক সমস্যা (problem) হবে বুঝতে পারি কিন্তু কি করব ফিঙারিং না করে থাকতেও পারিনা। এই অভ্যাস ছাড়ার জন্য ৫ ওয়াক্ত নামাজ শুরু করেছি কিন্তু এখনো মিলনের(physical relation) পর ফিঙারিং না করা পযন্ত সুখ পাইনা।
প্রথমে ভেবেছিলাম হয়ত ওর মিলনের(physical relation) টাইম কম তাই এমন হচ্ছে কিন্তু আমার হাসবেন্ড মাঝখানে সেক্স ট্যাবলেট খেয়েও দীর্ঘ সময় নিয়ে মিলন(physical relation) করেছে তবু একই রকম অবস্থা।আমি কি করব? ও যখন আমার সাথে মিলিত হইতে চায় তখন বিরক্ত লাগে।কিন্তু বলতে পারিনা।যদি ও কষ্ট পায় তাই। প্লিজ একটা উপায় বলে দেন ভাইয়া।

আরো পড়ুন  চুল লম্বা করার ৩টি সহজ ঘরোয়া পদ্ধতি

আমি খুব সমস্যায় (problem) আছি।।

বিদ্র: প্লিজ কেউ খারাপ কমেন্ট করবেন না কারন আমার সমস্যা (problem) থেকে মুক্তি পাবার জন্যই আমি আমার কথা গুলো শেয়ার করেছি। এতদিন কথাগুলো আমি নিজের মধ্যেই চেপে রেখেছিলাম।

পরামর্শঃ এটা আপনার এক প্রকারের মানসিক সমস্যা (problem) ,আপনি আসলে এটাতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছেন তাই ছাড়তে পারছেন না,অতিদ্রুত কোন মনোরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করুন,আপনার কাউন্সেলিং দরকার,যদি দরকার হয় তাহলে আপনার স্বামী কে সব খুলে বলুন এবং সহযোগিতা নিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *